আজকালের প্রতিবেদন- এনআরসি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে ফের ধাক্কা খেল কেন্দ্রীয় সরকার। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় সরকারের আর্জি খারিজ করে দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিল, ৩১ আগস্টের মধ্যেই প্রকাশ করা হবে অসমের এনআরসি–র চূড়ান্ত তালিকা। কেন্দ্রীয় সরকারের পুনরায় তথ্য যাচাইয়ের আবেদনও খারিজ করে দেয় সুপ্রিম কোর্ট। অর্থাৎ জোড়া ধাক্কা। এর জেরে বেরিয়ে আসছে বিজেপি–র ক্ষোভ। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ও বিচারপতি আর এফ নরিম্যানের বেঞ্চ অবশ্য জানিয়ে দিয়েছে, কে কী বলছেন, সেটাকে ধর্তব্যের মধ্যে আনছে না আদালত। তাঁরা ব্যস্ত এনআরসি–র তালিকা প্রকাশে।
প্রধান বিচারপতি মঙ্গলবার সাফ জানিয়ে দেন, কোনও অবস্থাতেই সময়সীমা বাড়ানো হবে না। তালিকায় বাদ পড়াদের নাম ৩১ আগস্ট রাতের মধ্যেই অনলাইনে প্রকাশ করতে হবে। এনআরসি–র সমস্ত তথ্য রাখতে হবে আধার–এর মতোই সুরক্ষিত করে। বিধানসভার ভেতর ও বাইরে যতই সমালোচনা হোক, সে সবে কান না দিয়ে নিজের কাজ করতে এনআরসি–র সমন্বায়ক প্রতীক হাজেলাকে নির্দেশ দেয় সর্বোচ্চ আদালত। 
বিজেপি ও তাদের সমর্থকেরা প্রতীক হাজেলাকেই চাঁদমারি করে চলেছেন। দলের বিধায়ক শিলাদিত্য দেব এদিন বলেন, ‘ বহু বাংলাদেশি মুসলিম এবার আইনসম্মতভাবে ভারতের নাগরিকত্ব পাবে।’ খসড়া তালিকাভুক্তদের নাম নতুন করে যাচাই করার আবেদন খারিজ হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করেছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অসম পাবলিক ওয়ার্কস (এপিডব্লিউ)। তাদের নিশানায় প্রতীক হাজেলা। অন্যদিকে, অভিযোগ, এনআরসি নিয়ে ভাষিক ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের হয়রানি করা হচ্ছে। কংগ্রেস সাংসদ আবদুল খালেকের বক্তব্য, তথ্য যাচাইয়ের নামে হয়রানি করা হচ্ছে সংখ্যালঘুদের। সুপ্রিম কোর্টের রায় কিছুটা হলেও তাঁদের স্বস্তি দেবে। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top