আবু হায়াত বিশ্বাস, দিল্লি: ভারতে গত ১১ দিনে সুস্থ হয়েছেন ১০ লক্ষ করোনা–আক্রান্ত রোগী। দেশে করোনা–আক্রান্ত ৬০ লক্ষের গণ্ডি পেরিয়েছে। এঁদের মধ্যে ৫০ লক্ষের বেশি এখন সুস্থ। গত কয়েক মাসে দেশে যেমন সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়েছে, তেমনই সুস্থতার সংখ্যাও দ্রুত বেড়েছে। এই মুহূর্তে দেশে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ৯,৬২,৬৪০। যা মোট রোগীর ১৫.‌৮ শতাংশ মাত্র। তবে, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধ‌ন বলেছেন, ভারত হার্ড ইমিউনিটি (‌অর্থাৎ, যখন অধিকাংশ মানুষের শরীরেই অ্যান্টিবডি থাকে)‌ অর্জন করার থেকে এখনও অনেকটাই দূরে রয়েছে। সংক্রমণ রুখতে আমাদের এখনও যথাযথ করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এদিকে, আনলক–৪ পর্ব শেষ হচ্ছে ৩০ সেপ্টেম্বর। আনলক–৫ পর্বে আরও ছাড় মিলবে বলেই মনে করা হচ্ছে। 
কয়েক দিনে দৈনিক সংক্রমিতের চেয়ে সুস্থতার সংখ্যা বেশি থাকলেও গত ২৪ ঘণ্টায় ফের আক্রান্তের সংখ্যা টপকে গেল সুস্থতার সংখ্যাকে। বেড়েছে সংক্রমণের হারও। সোমবার সকালের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য বলছে, একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন ৮২,১৭০ জন। আর, সুস্থ হয়েছেন ৭৪,৮৯৩ জন। একই সময়ে মৃত্যু হয়েছে ১,০৩৯ জনের। প্রায় এক মাস ধরে বিশ্বে দৈনিক করোনায় মৃত্যুর শীর্ষে রয়েছে ভারত। তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রক বলছে, বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতের প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় করোনা সংক্রমিত ও মৃত্যুর সংখ্যা অনেকটাই কম। দেশে এখনও পর্যন্ত ৯৫,৫৪২ জন করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন। মৃত্যুহার ১.‌৬ শতাংশ।
এদিকে, করোনা টিকা সম্পর্কিত তথ্য জানাতে আইসিএমআর করোনা পোর্টাল তৈরি করেছে। সোমবার সেই পোর্টালের উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন। তিনি জানান, করোনা টিকা, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সমস্ত তথ্য এবার থেকে অনলাইন পোর্টাল থেকে প্রত্যেকে জানতে পারবেন। দেশে করোনা টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালাচ্ছে তিনটি সংস্থা। কোন টিকা ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের কোন পর্যায়ে রয়েছে, তার সমস্ত তথ্য থাকবে পোর্টালে। আগামী বছরের শুরুতেই করোনা টিকা চলে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন হর্ষবর্ধন। 
গত ২৪ ঘণটায় দেশে সর্বাধিক সুস্থ হওয়া রাজ্যগুলির মধ্যে অন্যতম মহারাষ্ট্র। ওই রাজ্যে ১৩,৫৬৫ জন সুস্থ হয়েছেন একদিনে। আক্রান্ত হয়েছেন ১৮ হাজারের বেশি মানুষ। মহারাষ্ট্রে এখনও সক্রিয় করোনা রোগী রয়েছেন ২,৭৩,৬৪৬ জন। এখনও পর্যন্ত ওই রাজ্যে করোনার বলি ৩৫,৫৭১ জন। কর্ণাটকেও সাড়ে ৯ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন একদিনে। পাশাপাশি অন্ধ্রপ্রদেশেও প্রায় ৭ হাজার আক্রান্ত হয়েছেন। অন্যদিকে, গত কয়েক দিন থেকে দক্ষিণের আরেক রাজ্য কেরলে করোনা পজিটিভ কেসের সংখ্যা লাফিয়ে বেড়েছে। কেরলে প্রথম দিকে সংক্রমণ কমে গেলেও এখন ফের নতুন করে বাড়ছে আক্রান্ত। গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় সাড়ে ৭ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। এই সময়ে সুস্থ হয়েছেন ৩,৩৯১ জন। কেরল স্বাস্থ্য দপ্তরের তথ্যানুসারে রাজ্যে এই মুহূর্তে সক্রিয় করোনা কেস রয়েছে ৫৬,৭৮৬টি। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top