আজকাল ওয়েবডেস্ক: বিদ্যা বিনয় দান করে বলে এতদিন সংস্কৃত বিষয়ে পড়ানো হতো। কিন্তু এখন জানা গেল‌ শিক্ষা ও প্রভাব–প্রতিপত্তি আনে ঔদ্ধত্য। আর তাই শিক্ষিত ও সম্ভ্রান্ত পরিবারে দিন দিন বিবাহবিচ্ছেদের সংখ্যা বাড়ছে। এই মতপ্রকাশ করলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের প্রধান মোহন ভাগবত। একইসঙ্গে ভারতে হিন্দু সমাজের কোনও বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি। ভাগবতের শিক্ষা ও বিবাহবিচ্ছেদ নিয়ে করা মন্তব্য এখন জোর বিতর্কের জন্ম দিয়েছে।
আহমেদাবাদে আরএসএসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দলের কর্মী–সমর্থকরা। সেখানেই বক্তব্য রাখতে গিয়ে ভাগবত বলেন, ‘‌আজকের দিনে বিবাহবিচ্ছেদের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। ছোটখাটো ইস্যুতেই লড়াই করছে মানুষজন। শিক্ষিত ও সম্ভ্রান্ত পরিবারে বিবাহবিচ্ছেদের সংখ্যা বেশি। কারণ শিক্ষা এবং প্রভাব–প্রতিপত্তি থেকে আসে ঔদ্ধত্য। তার ফলেই পরিবারগুলি ভেঙে যায়। ভেঙে যায় সমাজও। সমাজটাও পরিবারের মতো।’‌ 
আরএসএসের কাজকর্ম নিয়ে প্রচার করতে বলেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘‌আমরা চাই স্বয়ংসেবকরা তাঁদের পরিবারকে সংঘের কাজকর্মের কথা বলুন। সমাজের এই অবস্থার কারণ, গত দু’‌হাজার বছর ধরে চলে আসা প্রথা। মহিলারা এখানে ঘরবন্দি হয়ে থাকেন। আমি একজন হিন্দু। সব ধর্মের বিশ্বাসের জায়গাগুলিকেই শ্রদ্ধা করি। নিজের জায়গাটা সম্পর্কে আমার ভাবনা অনেক দৃঢ়। আমার পরিবার থেকে আমি সংস্কার পেয়েছি। মাতৃশক্তি এগুলি আমাদের শিখিয়েছে। মহিলাদের ছাড়া সমাজ হয় না। সমাজের যত্ন না নিলে আমরাও বাঁচব না, পরিবারও বাঁচবে না।’‌ যদিও বলিউড অভিনেত্রী সোনম কাপুর টুইট করে জানিয়েছেন, মোহন ভাগবতের শিক্ষা ও বিবাহবিচ্ছেদ সংক্রান্ত মন্তব্য বোকার মতো।

জনপ্রিয়

Back To Top