আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ করোনার আবহেই ঢাকে কাঠি পড়ল। শুরু হয়ে গেল দুর্গা পুজো। ষষ্ঠীর দিন দিল্লিতে বসেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কলকাতার পুজো উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। গরদের ধুতি–পাঞ্জাবি পরে ছুঁতে চাইলেন বাঙালির ভাবাবেগ। তাই ভাষণ শুরুও করলেন বাংলায়।
মোদির ভাষণের আগে উদ্বোধনী সঙ্গীত করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। ছিল ডোনা গাঙ্গুলির নাচ। তার পরেই ভাষণ শুরু করেন মোদি। সূচনা ছাড়া বাকি বক্তৃতা হিন্দিতে দিলেও মাঝেমাঝেই এসেছে বাংলা শব্দ, বাক্য। আর ভাষণেরই বিষয় ছিল বাংলা ও বাঙালি। 
বাংলার মানুষকে দুর্গাপুজোর অভিনন্দন জানিয়ে লোকনাথ বাবা, অনুকূল ঠাকুরের নাম স্মরণ করেন তিনি। তাঁর মতে, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম নিলেই অন্তরে বিশেষ অনুভূতির সৃষ্টি হয়। বিজ্ঞানে জগদীশচন্দ্র বসু, সত্যেন্দ্রনাথ বসুর নাম নেন প্রধানমন্ত্রী। সিনেমা জগতে ঋত্বিক ঘটক, সুচিত্রা সেনের মতো শিল্পীদের অবদানও উল্লেখ করেন তিনি।
মোদি এও বললেন, বাংলার মানুষ চিরকাল দেশকে উন্নতির পথ দেখিয়েছে। ‘‌আমার আশা আগামী দিনেও বাঙালিরা ভারতকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।’‌ তবে উৎসবের মুরসুমেও সাবধান করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। করোনা বিধি মেনে পুজো দেখার আর্জি জানিয়েছেন তিনি। 
মায়ের পুজোর আবহে প্রধানমন্ত্রী মনে করিয়ে দিলেন, মহিলাদের জন্য কেন্দ্র কী কী পদক্ষেপ করেছে। ২২ লক্ষ মহিলার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। মাতৃত্বকালীন ছুটি বাড়ানো হয়েছে। ১২ সপ্তাহ থেকে ২৬ সপ্তাহ করা হয়েছে। ‘বেটি বাচাও বেটি পড়াও’ প্রকল্পে জোর দেওয়া হয়েছে। এসবের মাঝে ‘‌বাংলার মাটি, বাংলার জল’‌ কবিতার দু’‌ লাইনও বলেছেন তিনি। 

জনপ্রিয়

Back To Top