আজকাল ওয়েবডেস্ক: কয়েক কোটি টাকার রাফাল যুদ্ধবিমান চুক্তির নেপথ্যে নরেন্দ্র মোদিই। প্যারিসে গিয়ে ব্যক্তিগতভাবে হস্তক্ষেপ করেছেন। রাফাল– বিতর্কে এভাবেই সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর দিকে আঙুল তুললেন রাহুল গান্ধী। কয়েক কোটি টাকার ওই যুদ্ধবিমান চুক্তিতে বড়রকম কেলেঙ্কারি রয়েছে, বলছে কংগ্রেস। বিজেপির মুখে কুলুপ। দিল্লিতে আজ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‌‘‌প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেছেন, রাফাল কিনতে কতটা খরচ হচ্ছে বলবেন না। তার অর্থ কী?‌ অর্থ এ-‌ই যে তাতে বড় কেলেঙ্কারি আছে। মোদিজি নিজে প্যারিসে গিয়ে চুক্তিপত্রে বদল ঘটিয়েছেন। সারা দেশ জানে।’‌ এরপর টুইটারেও রাফাল চুক্তি নিয়ে সোচ্চার হয়েছেন রাহুল। টুইট করেছেন, ‘‌টপ সিক্রেট। প্রতিটি জেটের দরদাম করেছেন প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর ‘‌বিশ্বস্ত বন্ধু’‌। কত টাকায় রফা হল, সংসদে সেটা বললে বোধহয় জাতীয় সুরক্ষা লঙ্ঘন হয়‌!‌ যাঁরা ওই নিয়ে প্রশ্ন তুলবেন, তাঁরা তৎক্ষণাৎ দেশদ্রোহী হয়ে যাবেন!‌’‌ রাফাল চুক্তি নিয়ে সরকারের রাখঢাক নিয়ে সরব হয়েছেন কংগ্রেসের রাজ্যসভার নেতা গুলাম নবি আজাদও। বলেছেন, ‘‌দেশের স্বার্থ, দেশের নিরাপত্তা নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে সরকার, যা ক্ষমার অযোগ্য। বায়ুসেনার জন্য জেট কেনার নামে বিরাট ষড়যন্ত্র চলছে!‌’ সাংবাদিক–সম্মেলনে আজাদের সঙ্গেই ছিলেন কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা। তিনি জানিয়েছেন, ‘‌রাফাল কেনার খরচ না জানিয়ে নিরাপত্তা–বিষয়ক ক্যাবিনেট কমিটির শর্ত লঙ্ঘন করেছে সরকার।‌ ঘনিষ্ঠ কয়েকজন অসাধু শিল্পপতির সুবিধে দেখতে গিয়ে দেশের নিরাপত্তাকে পেছনের সারিতে ঠেলে দেওয়া হয়েছে।’‌ ফ্রান্সের থেকে ৩৬টি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার খরচ কত হল?‌ বিরোধীরা বারবার প্রশ্ন তুলেছেন। গতকাল প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামন সংসদে জানান, তা ফাঁস করা যাবে না। কারণ দু’‌দেশের পারস্পরিক চুক্তিটি ‘‌গোপনীয় তথ্য’‌। ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top