আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ করোনা সংক্রামিত হয়ে রাজ্যে প্রথম মৃত্যু হয় দমদমের বাসিন্দা বৃদ্ধের। পরিবারের সদস্যরা দেহ নিতে অস্বীকার করায় দেহ সৎকারের ব্যবস্থা করে খোদ পুলিশ। কিন্তু দেহ নিয়ে নিমতলা ঘাট শ্মশানে পৌঁছলে বাধে বচসা। স্থানীয় বাসিন্দারা করোনা আক্রান্ত রোগীর সৎকারে বাধা দেয়। পুলিশের সঙ্গে দীর্ঘ বাক–বিতণ্ডা শেষে গভীর রাতে দেহ সৎকার করে পুলিশ।
এই ঘটনার আর পুনরাবৃত্তি চায় না শহরের প্রশাসন। তাই করোনা আক্রান্ত কোনও রোগীর মৃত্যু হলে, এবার তাঁর সৎকার হবে একেবারে অন্যস্থানে। তা সে কবর দেওয়াই হোক বা দাহকাজ। কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণে কারও মৃত্যু হলে সৎকারের জন্য ধাপার মাঠ এবং কবর দেওয়ার জন্য বাগমারির কাছে একটি জায়গা খোঁজা হয়েছে। সেই দুটি জায়গাতেই হবে শেষকৃত্য এবং কবর দেওয়া। এমনকি এই কাজের জন্য যারা নিযুক্ত হবেন, তাঁরা বিশেষ পোশাকেই সব কাজ সম্পন্ন করবেন।
প্রসঙ্গত, গত সোমবার করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে রাজ্য তথা কলকাতায় প্রথম মৃত্যু হয় দমদমের বাসিন্দা ৫৭ বছরের এক ব্যক্তির। সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান তিনি। গত সপ্তাহের শনিবার নানা পরীক্ষার পর তাঁর শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি মেলে। এরপর সোমবার দুপুরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তাঁর।

জনপ্রিয়

Back To Top