আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ টানা ছয় মাস বেতন পাননি। স্বাভাবিক নিয়মে জীবনযাপনই অসহনীয় হয়ে উঠেছে কেরলের বিএসএনএল–এর চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের। সংস্থার কমপক্ষে ৮০০০ চুক্তিভিত্তিক কর্মী এই সমস্যার শিকার। কারও সন্তানকে স্কুল ছাড়তে হয়েছে স্কুলের মাইনে দিতে না পারায়। তো কাউকে ভাড়ার বাড়ি ছাড়তে হয়েছে ভাড়া দিতে না পারায়। তিরুর এক্সচেঞ্জ হোক বা বাণিয়াবালাম এক্সচেঞ্জ, সর্বত্র একই ছবি। প্রতিবাদ জানিয়ে বৃহস্পতিবার থেকে ধর্মঘটে নেমেছেন কেরলের সব চুক্তিভিত্তিক কর্মচারী। 
বিএসএনএল–কে এই চুক্তি ভিত্তিক কর্মচারী সরবরাহ করে থাকে সংস্থার সঙ্গে এব্যাপারে বরাত পাওয়া ৬০টি ঠিকাদারি কোম্পানি। ঠিকাদারদের পাওয়া মেটানো বিএসএনএল বন্ধ করে দেওয়ার পরই সমস্যার সূত্রপাত। চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের বেতন ৬৩৫ টাকা বৃদ্ধি হলেও এই ছয় মাস কোনও বেতন পাননি তাঁরা। এর মধ্যেই ৮৩জন চুক্তিভিত্তিক কর্মচারীকে ৪৭৮ টাকা বেতন হাতে দিয়ে বরখাস্ত করেছে বিএসএনএল। বিএসএনএল–এর পরিষেবা সংগঠনের তরফে অনুদান জোগার করে কর্মচারীদের জন্য নিত্যপ্রয়োজীয় এবং খাদ্য সামগ্রীর কিছু ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু তা যথেষ্ট নয় বলে জানিয়ে কর্মীদের অভিযোগ, বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ তাঁদের দুর্দশা সম্পর্কে দৃকপাতই করছে না। এদিকে পেট্রোলের দাম না দেওয়ায় কোম্পানির বেশ কিছু গাড়িও বাজেয়াপ্ত করে নিয়েছে কয়েকটি পেট্রোল পাম্প। সব মিলিয়ে কেরলে প্রচন্ড দৈন্যদশায় বিএসএনএল। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top