Hijab Row: হিজাব নিষিদ্ধ করা আর কোরান নিষিদ্ধ করা একই, আদালতে দাবি এক আবেদনকারীর!

আজকাল ওয়েবডেস্ক: শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হিজাব নিষিদ্ধ করার প্রতিবাদে আবেদনের শুনানি চলছিল আজ কর্নাটক হাইকোর্টে।

আজকের মতো শুনানি শেষ, আদালত ফের আগামিকাল আবেদন শুনবে। এর মধ্যেই একটি আবেদন খারিজ করে দিয়েছে তিন বিচারপতির বেঞ্চ। প্রধান বিচারপতি ঋতুরাজ অবস্থির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে আগামিকাল দুপুর ২:৩০ থেকে শুনানি শুরু। 
এক সমাজকর্মীর আবেদন খারিজ করে দিয়েছে হাইকোর্ট। সমাজকর্মীর তরফে উপস্থিত আইনজীবী রহমতুল্লা কোটওয়ালকে তিন সদস্যের বেঞ্চ জানায়, ‘এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আপনারা আমাদের সময় নষ্ট করছেন।’ পাঁচ ছাত্রীর মূল আবেদন যে আইনজীবীর তত্ত্বাবধানে সেই বরিষ্ঠ আইনজীবী এএম দারকে আদালত জানায়, যদি তিনি চান তো পুরনো আবেদন বাতিল করে নতুন আবেদন ফাইল করতে পারেন। দার বলেছিলেন, ‘রাজ্য সরকারের নির্দেশ আমার মক্কেলদের ক্ষতি করবে কারণ তারা হিজাব পরে।’ 

আরও পড়ুন: আইপিএলে দর ‘কম’! রঞ্জি অভিষেকেই সেঞ্চুরি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়কের  


আর একটি আবেদনে আইনজীবী বিনোদ কুলকার্নি আদালতকে জানান, এই ইস্যু হিস্টিরিয়ার উদ্রেক করবে এবং মুসলিম মেয়েদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করবে। তিনি অন্ততপক্ষে শুক্রবারে হিজাব পরার অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশ দেওয়ার অনুরোধ করেন, যাতে কিছুটা স্বস্তি মিলবে। কুলকার্নি এও বলেন, হিজাব নিষিদ্ধ করা আর কোরান নিষিদ্ধ করা একই। তবে তেমন কোনও নির্দেশ দেয়নি আদালত। 
এদিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হিজাব নিষিদ্ধ হওয়া নিয়ে প্রতিবাদের তীব্রতা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। কর্নাটক হাইকোর্ট জানিয়েছে, যতদিন না এই মামলার নিষ্পত্তি হয়, ততদিন হিজাবে নিষেধাজ্ঞাই বহাল থাকবে। কোনও কোনও মহল এই মামলা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপ দাবি করলেও সর্বোচ্চ আদালত জানিয়ে দিয়েছে তারা ঠিক সময়েই বিষয়টার দায়িত্ব নেবে।      
 

আকর্ষণীয়খবর