আজকাল ওয়েবডেস্ক: তাঁর ক্যারিশমা এমনই, শিশু থেকে বুড়ো সকলেই তাঁর ফ্যান। আর হবে নাই বা কেন, তিনি গান্ধী পরিবারের যোগ্য উত্তরসূরী বলে কথা। সেই কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর সঙ্গে দেখা করতে পেরে কান্না জুড়ে দিয়েছে কান্নুরের সাত বছরের শিশু। ছোট্ট নধনের সেই কাঁদার ছবি ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তবে নধনের কান্না দেখে থাকতে পারেননি খোদ রাহুলও। তাই তিনি শিশুটির কান্না থামতে তড়িঘড়ি তাকে ফোন করে বৃহস্পতিবার। কংগ্রেসের এক কর্মীর কাছ থেকে বিষয়টি জানতে পেরে তালিপরম্বার ছোট্ট ফ্যানের সঙ্গে কথা না বলে থাকতে পারেননি রাহুল গান্ধী। সরাসরি তার প্রিয় হিরোর সঙ্গে কথা বলতে পেরে নধনতো বেজায় খুশি । 
দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র নধনের প্রিয় হিরো রাহুল গান্ধী। যদিও এই বয়সে পোকেম্যান বা নবিতার মতো কার্টুন চরিত্ররাই শিশু মন অধিকার করে থাকে। কিন্তু নধনের ক্ষেত্রে সেটা ব্যতিক্রম। কোঝিকোড়েতে রাহুলের জনসভা ছিল। নধনের ইচ্ছা ছিল সেখানে গিয়ে তার প্রিয় নেতার সঙ্গে দেখা করার। নধন তার মা‌–বাবাকে তার ইচ্ছার কথা জানায়। শিশুটির অভিভাবকও তাকে কথা দেয় যে রাহুল গান্ধীর সঙ্গে দেখা করাবে তাঁরা। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত রাহুল গান্ধীর জনসভায় নিরাপত্তাজনিত কারণে ঢুকতে বাধা পায় নধন ও তার মা–বাবা। জনসভা থেকে বেড়িয়েই কান্না জুড়ে দেয় নধন।  
শিশুটির বাবা সন্তোষ তাঁর ছেলের কান্নার ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে। তার সঙ্গে কেন সে কাঁদছে তার বিবরণও দেন তিনি। কিছুক্ষণের মধ্যেই নধনের কান্নার ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। এই ছবিটি নজরে আসে কংগ্রেস নেতৃত্বদেরও। কংগ্রেস নেতা অনাত্থ সুরেশ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে ছোট্ট নধনের কথা জানান। এরপরই নধনের কাছে ফোন আসে রাহুল গান্ধীর। এরপরই নধনের বাবা ফেসবুকে আরও একটি পোস্ট করেন। তিনি লেখেন, ‘‌তাঁর মূল্যবোধের জন্য সাত বছরের শিশুও তাঁর ভক্ত। আমি সকাল ১০টা ৫৯ মিনিটে ফোন পাই। আমি রাহুল বলছি, আমি কি আপনার ছেলের সঙ্গে কথা বলতে পারি?‌ তিনি খুব নম্রভাবে আমাকে জিজ্ঞাসা করেন। আমি অবাক হয়ে যাই। আপনার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। ধন্যবাদ জানাচ্ছি অনাত্থু সুরেশকেও, যিনি আমাদের সমর্থন করেছেন।’‌    ‌

জনপ্রিয়

Back To Top