আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ জোর ধাক্কা খেলেন যোগী আদিত্যনাথ। অবিলম্বে ধৃত সাংবাদিক প্রশান্ত কানোজিয়াকে ছেড়ে দিতে মঙ্গলবার উত্তর প্রদেশ পুলিসকে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। যোগীর বিরুদ্ধে আপত্তিকর ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টে জন্য শনিবার দিল্লির বাড়ি থেকে প্রশান্তকে আটক করে নয়ডা নিয়ে গিয়ে গ্রেপ্তার করেছিল উত্তর প্রদেশ পুলিস। সেই গ্রেপ্তারিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে সোমবার আবেদন করেছিলেন প্রশান্তের স্ত্রী জাগিষা অরোরা। সেই আবেদনের শুনানিতেই এই নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। 
এদিন সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, ‘‌সাধারণত এধরনের আর্জি আমরা শুনি না। কিন্তু একজন ব্যক্তি অকারণে ১১দিন জেলে থাকতে পারেন না। মানুষের স্বাধীনতা মৌলিক অধিকার। এটা নিয়ে কোনও সমঝোতা চলতে পারে না। এটা সংবিধানে উল্লেখ রয়েছে এবং কেউ সেখানে হস্তক্ষেপ করতে পারে না। তার মানে এই নয় যে এধরনের টুইটকে আদালত সমর্থন করছে। আমরা এধরনের টুইটকে নাকচ করতেই পারি কিন্তু স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপকেও খারিজ করছি।’‌ সাংবাদিককে মুক্তি দেওয়ার ক্ষেত্রে উত্তর প্রদেশ সরকারকে মহানুভবতার পরিচয় দিতে পরামর্শ দিয়েছে শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর সন্তুষ্ট জাগিষা অরোরা বলেছেন, ‘‌আমি সংবিধানে বিশ্বাস করি। আমি তাই এই মামলা লড়েছিলাম। আমি খুব খুশি।’‌ 
প্রশান্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ভিডিও পোস্ট করেছিলেন, সেখানে দেখা যাচ্ছে এক মহিলা সাংবাদিকদের কাছে দাবি করছেন তিনি যোগী আদিত্যনাথকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছেন। অবমাননাকর পোস্ট করে যোগীর চরিত্র কালিমালিপ্ত করছেন ফ্রিলান্স সাংবাদিক প্রশান্ত, এই মর্মে শুক্রবার লখনউ–এর এক পুলিস অফিসার থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তারপরই শনিবার সকালে প্রশান্তকে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৬৭ নম্বর ধারায় গ্রেপ্তার করে পুলিস। তাঁর বিরুদ্ধে মানুষকে বিপথে চালিত করার মন্তব্য এবং অপরাধমূলক মানহানির অভিযোগে মামলা রুজু হয়। 
প্রশান্তের পোস্ট করা ভিডিও–র অভিযোগকারিণীকে নিয়ে গত ছয় তারিখ একটি বিতর্ক সভা সম্প্রচারের অভিযোগে ওই সন্ধ্যাতেই গ্রেপ্তার হন লখনউ–এর বেসরকারি খবরের চ্যানেল ‘‌নেশন লাইভ’‌–এর প্রধান ঈশিকা সিং এবং সম্পাদক অনুজ শুক্লা। একটি রাজনৈতিক দলের কর্মীরা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন এই মর্মে যে, কোনও উপযুক্ত তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই ওই মহিলার বক্তব্য সম্প্রচার করেছে চ্যানেলটি। রবিবার রাতেও গোরখপুর থেকে এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয় যোগীর বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্য টুইটারে পোস্ট করার অভিযোগে। এই ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদের ঝড় ওঠে দেশজুড়ে। এডিটর্স গিল্ড কড়া সমালোচনা করে বলে এভাবে সাংবাদিকদের গ্রেপ্তার করা ক্ষমতার প্রদর্শন।   
ছবি:‌ লাইভ ল‌

জনপ্রিয়

Back To Top