আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এক মহিলা সাংবাদিক এবং তাঁর অসুস্থ বৃদ্ধা মাকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠল ইন্ডিগোর এক বিমানচালকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার বেঙ্গালুরু বিমানবন্দরে চেন্নাই থেকে বেঙ্গালুরুগামী ইন্ডিগোর ৬ই–৮০৬ উড়ানে। সুপ্রিয়া উন্নি নায়ার নামে ওই সাংবাদিক মঙ্গলবার সকালে একগুচ্ছ টুইটার পোস্টে ইন্ডিগো কোম্পানির কাছে অভিযোগ করেছেন, তিনি যখন ডায়াবিটিসের রোগী, তাঁর ৭৫ বছরের মায়ের জন্য হুইলচেয়ার পরিষেবা চাইতে যান, তখন এক বিমানকর্মী তাঁকে বলেন, টিকিটে লেখা নেই বলে সেই পরিষেবা তিনি পাবেন না। তারপরই জয়কৃষ্ণ নামে ওই বিমানচালক তাঁর উপর চিৎকার করে ওঠেন। সুপ্রিয়া এর প্রতিবাদ করলে জয়কৃষ্ণ  আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে চিৎকার করতে থাকেন। এমনকি বিমানবন্দর থেকে হুইলচেয়ার নিয়ে সহায়করা বিমানে ঢুকে এলও জয়কৃষ্ণ তাঁদের বাধা দেয় এবং সুপ্রিয়া এবং তাঁর মাকে রীতিমতো  হুমকি দিয়ে বলেন, ‘‌আপনারা কোথাও যাচ্ছেন না। আমরা আপনাদের শিক্ষা দেব, নিশ্চিত করব যাতে আপনারা আটক হয়ে আজ রাতটা জেলে কাটান।’‌ সুপ্রিয়ার লিখেছেন, যখনই তিনি বিমানে মাকে নিয়ে যাতায়াত করেন, তখনই তিনি ওঠা–নামার সময় হুইলচেয়ার পরিষেবা চান। এব্যাপারে সব বিমান কোম্পানি থেকেই তিনি সেই পরিষেবা পেয়েছেন। বিমানের অন্যান্য যাত্রী এবং বিমানকর্মীদের সামনেই দুপক্ষের বাদানুবাদ চলতে থাকে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান ইন্ডিগোর গ্রাউন্ড স্টাফরা এবং নিরাপত্তাকর্মীরাও। এমনকি লাউঞ্জে পৌঁছেও দুপক্ষের বাকবিতণ্ডা চলতে থাকে বলে অভিযোগ। সুপ্রিয়া টুইটারে আরও লিখেছেন, জয়কৃষ্ণ তাঁকে হুমকি দিয়ে বলেন এই সব ঘটনা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলে তাঁকে ফল ভুগতে হবে। বিমানের অন্য কর্মী এবং গ্রাউন্ড স্টাফরা জয়কৃষ্ণকে শান্ত করার চেষ্টা করলেও তিনি সুপ্রিয়াদের হুমকি দিয়ে বলতে থাকেন কোম্পানির সিইও–কে ডেকে তাঁদের গ্রেপ্তারি এবং এফআইআর–এর হুমকিও দেন। তবে সুপ্রিয়া লিখেছেন, লাউঞ্জে আসার পর ইন্ডিগোর অন্য কর্মীরাই তাঁদের নিরাপদে বের করে দেন বিমানবন্দর থেকে। এদিন সকালেই সুপ্রিয়ার টুইটার পোস্টগুলি দেখতে পান অসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী। তক্ষণাৎ তাঁর মন্ত্রকের অফিসারদের এব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ করতে নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রী।   

জনপ্রিয়

Back To Top