‌রাজীব চক্রবর্তী,দিল্লি: নিউ ইয়র্কে হাউডি মোদি–‌‌র কায়দায় আমেদাবাদে হবে নমস্তে ট্রাম্প। যে কোনও মূল্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে খুশি করতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কসরতের খবর ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বজুড়ে। যদিও দুই দেশের মধ্যে প্রতীক্ষিত বাণিজ্য চুক্তি এ যাত্রায় হচ্ছে না। যা হচ্ছে তা হল, ট্রাম্পের সস্ত্রীক বেড়ানো। আমেদাবাদে লক্ষ লোকের সমাবেশ, মোদি–‌ট্রাম্পের ২২ কিমি রোড শো, ট্রাম্প–‌‌মেলানিয়ার তাজ দর্শন, তাজমহলের গায়ে মাড প্যাক লাগানো, হরিদ্বার থেকে জল এনে যমুনায় ঢালার মতো কর্মসূচিতেই ভরা মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই সফর। 
মোদি তো ছিলেনই, ইতিমধ্যে ট্রাম্পের ‘‌হাই প্রোফাইল’‌ সফরকে রাজনৈতিক ভাবে তাৎপর্যপূর্ণ করে তুলতে উদ্যোগী হয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও। চীনকে অখুশি করে ট্রাম্প সফরের আগে অরুণাচল প্রদেশে গিয়ে ‘‌স্টেটহুড ডে’‌ উদযাপন করেছেন তিনি। 
তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, ট্রাম্পের এবারের সফরে ভারতের প্রাপ্তির ঝুলি মোটামুটি ফাঁকাই থাকছে। স্বভাবতই বাণিজ্য মহল হতাশ। ক্ষমতায় এসে এইচ ওয়ান বি ভিসা নিয়ে কড়াকড়ি করেছেন ট্রাম্প। ভারতীয় উচ্চাকাঙ্ক্ষী যুব সমাজের অনেকেরই মার্কিন দেশে কাজ করতে যাওয়ার সুযোগ মিলছে না। ট্রাম্পের ভারতের সফরের অ্যাজেন্ডাতেও এই বিষয়টি নেই। সফরসূচিতে কাটছাঁট করে আমেদাবাদে মাত্র ৩ ঘণ্টার সংক্ষিপ্ত সফর। 
সংক্ষিপ্ত সফর প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার বিদেশ মন্ত্রকের সাপ্তাহিক সাংবাদিক সম্মেলনে মন্ত্রকের মুখপাত্র রবীশ কুমার বলেছেন, ‘‌মার্কিন প্রেসিডেন্টের ভারত সফর সংক্ষিপ্ত হলেও সফরের গভীরতা অনেক।’‌ এদিকে ট্রাম্পের তাজমহলে যাওয়ার ব্যাপারে ভারতের গোয়েন্দা বিভাগের প্রথম থেকেই খুঁতখুঁতুনি ছিল। অতীতে প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তাজমহল দর্শনের সময় পাননি। তারও আগে ক্লিন্টন তাজ দেখতে চাইলেও উত্তরপ্রদেশের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মুলায়ম সিং যাদব বাদ সেধেছিলেন। এবার সেই সমস্যা নেই। যোগী আদিত্যনাথ সরকার সব দরজা খুলে দিয়েছে। এখন মাত্র ২৫০ মিটার পথ ট্রাম্প হেঁটে যাবেন কিনা তাই নিয়ে দু’‌‌দেশের গোয়েন্দাদের মধ্যে টানাপোড়েন চলছে। 
এতসবের মধ্যে মোদি ছাড়া অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে খুশি করার মতো একটি কর্মসূচি রয়েছে মেলানিয়া ট্রাম্পের। 
ডোনাল্ড ট্রাম্পের তৃতীয় স্ত্রী মেলানিয়া মার্কিন ফার্স্ট লেডি। তিনি দিল্লির সরকারি স্কুলে ‘‌হ্যাপিনেস ক্লাস’‌ দেখতে যাবেন। অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সফল কাজগুলির অন্যতম একটি সরকারি স্কুলগুলির আমূল সংস্কার। মঙ্গলবার দক্ষিণ দিল্লির এক সরকারি স্কুলে ‘হ্যাপিনেস ক্লাস’ দেখতে যাবেন মেলানিয়া। ঘণ্টাখানেক সেখানে থাকবেন। সরকারি স্কুলের পড়ুয়াদের মধ্যে পড়াশোনার চাপজনিত মানসিক অবসাদ ও ভীতি কাটাতে বছর দুয়েক আগে ‘‌হ্যাপিনেস ক্লাস’‌ চালু করেছে কেজরিওয়াল সরকার। ক্লাসে ধ্যান, আরাম, ছোটাছুটি–‌‌সহ নানা ছোটখাটো কাজ করে পড়ুয়ারা। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top