আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌বাইকে লাথি মারল পুলিস। নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাইকটি রাস্তায় পড়ে যায়। পেছনে থাকা এক ভ্যানের ধাক্কায় মৃত্যু হয় তিনমাসের অন্তঃসত্ত্বা মহিলার। ঘটনাটি ঘটে বুধবার ত্রিচিতে। সেই সময় পুলিস রাস্তায় নজরদারি করছিল। জানা গিয়েছে, বাইক থেকে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাটি রাস্তায় পড়ে যায় এবং বাইকের পেছনে থাকা একটি ভ্যান এসে মহিলাকে পিষে দিয়ে চলে যায়। ওই মহিলা তাঁর স্বামীর সঙ্গে বাইকে ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। 
স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই মহিলার নাম ঊষা (‌৩০)‌ এবং তাঁর স্বামীর নাম ধরমরাজ। ঊষা তিনমাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এই ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয়রা বৃহস্পতিবার পুলিসের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। পুলিসকে লক্ষ্য করে ইঁটবৃষ্টি করা হয়। কেউ কেউ এই ঘটনাকে খুন বলে দাবি করেন এবং পুলিসের যথাযথ শাস্তির আর্জি জানান। কিন্তু ঠিক কী হয়েছিল বুধবার রাতে? ‌জানা গিয়েছে, পুলিস বাইক চালকদের মাথায় হেলমেট রয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করছিল। কিন্তু হেলমেট না পরায় ঊষা এবং ধরমরাজ বাইক না দাঁড় করিয়ে দ্রুতগতিতে চলে যায়। কামারাজ নামে এক পুলিস কর্মী তাঁর নিজস্ব বাইকে চেপে ওই দম্পতির বাইকটিকে ধরে ফেলেন। কামরাজ লাথি মারেন দম্পতির বাইকে। যার ফলে বাইকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তায় পড়ে যায়। অন্তঃসত্ত্বা ঊষাকে পিষে দেয় পেছনে থাকা একটি ভ্যান। স্থানীয়দের রোষের মুখে পড়ে পুলিস কামারাজকে গ্রেপ্তার করতে বাধ্য হয়। এই ঘটনায় অল্প–বিস্তর আহত হন ঊষার স্বামী।  

 

 

 

ঘটনাস্থল ঘিরে আছে পুলিস।

জনপ্রিয়

Back To Top