রাস্তায় সিঙাড়া–কচুরি বিক্রি করে কোটি টাকার সম্পত্তি করেছেন কানপুরের খুচরো ব্যবসায়ীরা 

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ তাজ্জব ব্যাপার। কেউ হয়ত বিশ্বাসই করতে চাইবে না। কিন্তু বাস্তবে এমনটাই ঘটেছে। রাস্তায় চা–সিঙাড়া–কচুরি–তেলেভাজা কিংবা চাট বিক্রি করে কোটিপতি হয়েছেন উত্তরপ্রদেশের কানপুরের অন্তত ২৫০ জন। খুচরো পেশার সঙ্গে যুক্ত এই মানুষদের ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স দেখে চোখ কপালে উঠেছে আয়কর দপ্তরের। 
রাস্তায় সিঙাড়া–কচুরি–চা বিক্রি করেন এমন প্রায় ২৫০ জন কোটিপতির খোঁজ মিলেছে কানপুরে। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন বছরের পর বছর ধরে খুচরো বিক্রির সঙ্গে যুক্ত ওই সমস্ত কোটিপতিরা। কোনও রেজিস্ট্রেশন নেই। তাই আয়করও দিতে হয় না। শুধু তাই নয়, ফুড সেফটি অ্যান্ড স্টান্ডার্ডস অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার কোনও সার্টিফিকেট ছাড়াই এরা দিনের পর দিন খাবার বিক্রি করে চলেছেন। আয়কর দপ্তরের তদন্তে উঠে এসেছে আরও একটি চাঞ্চল্যকর তথ্য। কানপুরে সামান্য ছাঁট মালের ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত এক ব্যক্তির কাছে তিনটে দামি গাড়ি রয়েছে। 
বছরের পর বছর কর বা বা জিএসটি না দেওয়ার ফলে চার বছরে কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি কিনেছেন এই পেশার সঙ্গে যুক্ত অন্তত ২৫০ জন। জানা গেছে আর্যনগর ও স্বরূপনগরের একজন পান বিক্রেতা অতিমারির সময়ে নাকি প্রায় ৫ কোটি টাকার সম্পত্তি কিনেছেন। তদন্তে জানা গিয়েছে, সরকারের কর ফাঁকি দিতে কেউ কো–অপারেটিভ ব্যাঙ্কে রোজগারের টাকা গচ্ছিত করেছেন। আবার কেউ বা পরিবারের সদস্যদের নামে বিপুল সম্পত্তি কিনে রেখেছেন।