আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পাক বিমানকে তাড়া করে পাকিস্তানের সীমান্ত পেরিয়ে ঢুকে পড়েছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত শত্রুকে ছাড়েননি। তার সেই সাহসিকতাকেই স্বীকৃতি দিল কেন্দ্রীয় সরকার। সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, বালাকোট বিমান হামলার পর যিনি পাকিস্তানে কয়েকদিন আটকে ছিলেন, সেই অভিনন্দন বর্তমানকেই ৭৩তম স্বাধীনতা দিবসে বীরচক্র সম্মান দেওয়া হবে। আইএএফ স্কোয়াড্রন লিডার মিন্টি আগরওয়ালকে ফেব্রুয়ারিতে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যের বিমান সংঘর্ষের সময় যোদ্ধা নিয়ন্ত্রক হিসাবে অবদানের জন্য যুদ্ধসেবা পদক দিয়ে সম্মানিত করা হবে। পুলওয়ামা হামলার পরে ভারতের তরফে পাকিস্তানে বালাকোটে জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস করা হয়। সেই অভিযানেই এই দুই সেনা অফিসার অংশ নিয়েছিলেন। 
যদিও অভিনন্দনকে নিয়ে এর আগে পাকিস্তানের তরফে নানারকম অজুহাত দেওয়া হয়েছিল। প্রথমে পাক সেনার হেফাজতে অভিনন্দনকে আটকে রাখা হয়, তারপর পাক সংসদে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ঘোষণা করেন, অভিনন্দনকে নিরাপদে ভারতের হাতে তুলে দেবে পাকিস্তান। এরপর সীমান্ত দিয়ে পায়ে হেঁটে দেশে ফেরেন অভিনন্দন। জাতীয় স্তরে তাঁকে সাধুবাদ জানানো হয়, অনেকেই জাতীয় বীর হিসাবে অভিনন্দনকে শুভেচ্ছাবার্তা পাঠাতে থাকেন। যদিও সরকারি স্তরে প্রথমবারের জন্য এই পুরস্কার দেবে কেন্দ্র।

জনপ্রিয়

Back To Top