আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ নিজের ডিউটি করছিলেন তিনি। কিন্তু একে তো মহিলা, তায় পথ আটকেছেন বিজেপি নেতার ছেলের। নাইট কার্ফিউয়ের নিয়ম মানেননি তিনি। তাতেও চেকপয়েন্ট থেকে সরিয়ে দেওয়া হল মহিলা কনস্টেবলকেই। এই ঘটনার পর তিনি চাকরিতে ইস্তফা দিয়ে দেন।
কনস্টেবল সুনিতা যাদবের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে চলেছে দু’‌দিন ধরে। দেখা গিয়েছে, সুরাটে মহিলা কনস্টেবল সুনিতা যাদবের সঙ্গে তর্ক লেগেছে রাজ্যের বিজেপি মন্ত্রী কুমার কানানির ছেলে প্রকাশ কানানির সঙ্গে। প্রথমত প্রকাশ কানানি মাস্ক পরেছিলেন না। দ্বিতীয়ত, রাত ১০টার নাইট কার্ফিউকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে রাস্তায় বেরিয়েছিলেন। তাঁকে ও তাঁদের বন্ধুদের কেন আটকানো হল এই নিয়ে তর্ক লাগে সুনিতার সঙ্গে। সুনিতা তাঁদের গাড়ি থেকে বিধায়কের পোস্টারটা সরাতেও নির্দেশ দেয়। এসব কথোপকথনে প্রকাশকে বলতে শোনা যায়, ‘‌আমি বিধায়কের ছেলে। চাইলে আপনাকে এখানে ৩৬৫ দিন দাঁড় করিয়ে রাখতে পারি।’ এই হুমকির সাহসী জবাব শোনা যায় সুনিতার গলায়। ‘‌আমি তোমার বাবার চাকর নই। বা তোমারও নই। তাই তোমরা আমাকে এখানে দাঁড় করিয়ে রাখতে পারবে না।’ স্থানীয় থানার ইনস্টপেক্টরকে ফোন করতে শোনা যায়। তাঁকে সবটা জানানোর পরে সেই ইনস্পেক্টর সুনিতাকেই ওই চেকপয়েন্ট ছেড়ে চলে যেতে বলেন। এই ভিডিও ভাইরাল হতেই একের পর এক পোস্টে সুনিতা যাদবকে প্রশংসা করে বিধায়কের ছেলেকে গ্রেপ্তারের আর্জি জানাতে থাকেন নেটিজেনরা। বিশিষ্ট জনেদের মধ্যে রয়েছেন, স্বরা ভাষ্কর, স্বাতী মালিওয়াল, প্রমুখেরা। এই ঘটনার পরে বিধায়কের বয়ান নেওয়া হলে তিনি জানান, অডিওটি সত্য নয়। কেটে বাদ দেওয়া হয়েছে কিছু জায়গা। যেখানে মহিলা খারাপ কথা বলেছেন। 
সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক অভিযোগ পড়তে থাকলে, রবিবার বিধায়কের ছেলে ও তাঁর দুই বন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়। ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮, ২৬৯, ২৭০, ১৪৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হলেও তাঁরা চটজলদি জামিনে মুক্তিও পেয়ে গিয়েছেন। সুরাটের পুলিশ কমিশনার জানিয়েছেন, মহিলা কনস্টেবল অভিযোগ করেছেন, কয়েকজন পুরুষ মিলে তাঁকে হুমকি দিয়েছেন, তার পরেই তিনি এই বিষয়ে তদন্ত করে পদক্ষেপ করার নির্দেশ দিয়েছেন।     ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top