আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ৩০ বছর পিছিয়ে যেতে পারে দেশের অর্থনীতি। চলতি অর্থবর্ষে ভারতের আর্থিক বৃদ্ধির হার এক ধাক্কায় কমে দু’‌শতাংশ হয়ে যেতে পারে। উদ্বেগ বাড়াল আন্তর্জাতির মূল্যায়ণকারী সংস্থা ফিচ। সম্প্রতি একই পূর্বাভাষ দিয়েছে বেশ কয়েকটি মূল্যায়ণকারী সংস্থা। এশীয় উন্নয়ন ব্যাঙ্ক আগেই জানিয়েছিল, ২০২০–২১ অর্থবর্ষে ভারতের আর্থিক বৃদ্ধির হার তলানিতে ঠেকতে পারে। নেমে আসতে পারে চার শতাংশে। চলতি সপ্তাহে আরও একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা এস অ্যান্ড পি ভারতের আর্থিক বৃদ্ধির হারকে ৫.‌২ শতাংশ থেকে সোজা ৩.‌৫ শতাংশে নামিয়ে এনেছে। এছাড়া ইন্ডিয়া রেটিংস অ্যান্ড রিসার্চ নামে একটি সংস্থা ভারতের আর্থিক বৃদ্ধির হারের পূর্বাভাষ ৩.‌৬ শতাংশে নামিয়ে এনেছে। মুডিজও সম্প্রতি ভারতের বৃদ্ধির হারের পূর্বাভাষ ২‌.‌৫ শতাংশে নামিয়ে এনেছে। এবার আরও একধাপ এগিয়ে মোদি সরকারের অন্দরে কাঁপুনি ধরাল ফিচ। একেবারে দু’‌শতাংশে। আর যদি সত্যিই তাই হয়, সেক্ষেত্রে তা হবে গত ৩০ বছরে সর্বনিম্ম। অর্থাৎ এক ধাক্কায় ৩০ বছর পিছিয়ে যাবে ভারত। করোনার জেরেই ব্যাপক মন্দার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে বিশ্বের অর্থনীতি। 
তবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাঙ্ক কিছু আশার কথাও শুনিয়েছে। তাদের দাবি, ভারতে করোনা এখনও সেইভাবে প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি। করোনা মোকাবিলায় ভারতের বিভিন্ন কঠোর পদক্ষেপ এবং ক্রমশ শক্তিক্ষয় হওয়া বিশ্ব–অর্থনীতির ফলে ভারতের পালে হাওয়া লাগবে। এর ফলে, অচিরে কর্পোরেট ও ব্যক্তিগত আয়করে কাটছাঁট হবে। ফলে আর্থিক সংস্কার হবে এবং বাজারে নগদের জোগান বাড়বে। 

জনপ্রিয়

Back To Top