আজকাল ওয়েবডেস্ক: রবিবাসরীয় সকালটা আগুনের লেলিহান শিখা দিয়ে শুরু করল রাজধানী দিল্লি।‌ সাতসকালে ভয়াবহ আগুন লাগল দিল্লির রানি ঝাঁসি রোড এলাকার আনাজ মাণ্ডির একটি বাড়িতে। দ্রুত সেই আগুন ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। গোটা এলাকায় এই অগ্নিকাণ্ডে আতঙ্ক ও চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকলের ২৭টি ইঞ্জিন। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে উদ্ধার কাজ। এখনও পর্যন্ত ৪৫ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ভেতরে আর কেউ আটকে রয়েছে কিনা তার জন্য খোঁজ চলছে। তবে এই আগুনে যারা আটকে পড়েছেন তাঁদের মৃত্যু অবধারিত বলে মনে করছে দমকল দপ্তরের কর্তারা।
স্থানীয় সূত্রে খবর, রবিবার ভোরে ভয়াবহ আগুন লাগে দিল্লির রানি ঝাঁসি রোড এলাকার আনাজ মাণ্ডির একটি বাড়িতে। যদিও আগুন লাগার প্রকৃত কারণ জানা যায়নি। দমকলের ১৫টি ইঞ্জিন এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। পরে ঘটনাস্থলে আসে আরও ইঞ্জিন। মোট কাজ করছে ২৭টি ইঞ্জিন। কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে গিয়েছে গোটা এলাকা। আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে স্থানীয়রা।
দমকলের আধিকারিক সুনীল চৌধুরি জানান, এখনও পর্যন্ত ১৫ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। বাকি আরও কেউ আটকে রয়েছে কিনা তার জন্য তল্লাশি চালানো হচ্ছে। দিল্লি পুলিশ অবশ্য জানিয়েছে, এই ঘটনায় মোট ৪৫ জন ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরিস্থিতি ক্রমশ জটিল আকার ধারণ করছে। ফলে মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। কীভাবে আগুন লাগল তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।দিল্লির দমকলের প্রধান অতুল গর্গ জানান, এখন পর্যন্ত ৫০ জন উদ্ধার করা গিয়েছে। অত্যাধিক ধোঁয়ায় শ্বাসকষ্টেই অনেকের মৃত্যু হয়েছে।

 

এই ঘটনায় টুইট করে দুঃখপ্রকাশ করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তিনি জানান, উদ্ধারকারীরা তাঁদের সেরাটা দিয়ে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছেন। টুইটে শোকবার্তা জানান রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানান, নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি। সব ধরনের সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। বিপর্যয় মোকাবিলায় সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও।

জনপ্রিয়

Back To Top