আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ জামিনে ছাড়া পেল ধর্ষণে অভিযুক্ত বাবা ও দাদা। দিল্লি কোর্ট তার রায়ে জানাল, এ কথা বিশ্বাসযোগ্য নয় যে পরিবারের অন্যান্য সদস্যের সামনে তরুণী বারবার ধর্ষিত হয়েছে।  
এক তরুণী নিজের বাবা ও দাদার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন। ২০১৫ সাল থেকে টানা কয়েক মাস নিজের বাবা ও ভাইয়ের কাছে বারবার ধর্ষিত হয়েছে বলে তাঁর অভিযোগ। তখন তাঁর ১৭ বছর বয়স। অনেক সাহস করে এফআইআর দায়ের করার পর অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হয়। সম্প্রতি দিল্লি কোর্ট তাদের জামিন দিয়ে দেয়। জামিন দেওয়ার একটি বড় কারণ হিসেবে কোর্ট বলে, এফআইআর অনেক দেরিতে হয়েছে।
অতিরিক্ত সেশন বিচারক উমেদ সিং গ্রেওয়াল জানান, ওই পরিবারে দশজনের বেশি সদস্য। সবাই একসঙ্গে একই জায়গায় কোনও পার্টিশন ছাড়া ঘুমায়। তাহলে কীভাবে বাকি সদস্যদের চোখের আড়ালে এই ঘটনা দীর্ঘদিন ধরে ঘটতে পারে?‌ এছাড়া তরুণী জানিয়েছিলেন যে এই বিষয়ে কাউকে কিছু বলা বারণ ছিল। কোর্টের বক্তব্য, তাঁদের যে মুদিখানার দোকান ছিল, সেখানে তরুণী মাঝেমধ্যেই একা বসতেন। এত খরিদ্দার আসতেন, তাঁদের কখনও তিনি কিছু বলেননি কেন?‌ বলার তো সম্পূর্ণ সুযোগ ছিল। কোর্ট আরও জানায়, তরুণী ঘটনার দিন ও সময় প্রতিবার আলাদা আলাদা বলার কারণেও মামলাটি তাঁর বিরুদ্ধে গেছে। তরুণীর বাড়ির অন্যান্য সদস্যদেরকে পুলিশ এখনও অবধি কোনও জিজ্ঞাসাবাদ করেনি বলেই জানা যাচ্ছে। কোর্ট জানায়, তাঁর বাড়ির বাকিরা সম্ভবত তরুণীর এই অভিযোগকে সমর্থন করছেন না বলেই কোর্টে আসছেন না।    ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top