আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মাদক কাণ্ডে হাজিরা দিতে মুম্বইয়ে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (‌এনসিবি‌)‌ দপ্তরে দীপিকা পাড়ুকোন। শনিবারই হাজিরা দেওয়ার কথা ছিল তাঁর। দীপিকাকে মুম্বইয়ের কোলাবা অ্যাপালো বন্দরের এভলিন গেস্ট হাউসে জেরা করা হচ্ছে। এদিন সকালে সেখানে পৌঁছে যান তিনি। তবে স্বামী রণবীর সিংকে তাঁর সঙ্গে দেখা যায়নি। ওই একই মামলায় এদিন এনসিবির দপ্তরে হাজিরা দেওয়ার কথা অন্য দুই অভিনেতা সারা আলি খান এবং শ্রদ্ধা কাপুরেরও। তাঁদের বালাড এস্টেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানা গিয়েছে। এদিকে, শুক্রবার প্রায় সাত ঘণ্টা জেরা করা হয় দীপিকার ম্যানেজার করিশ্মা প্রকাশকেও। তাঁকে শনিবারও ফের ডাকা হয়েছে। শোনা যাচ্ছে, দীপিকা আর করিশ্মাকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করবে এনসিবি।
বলিউড আর মাদকের সম্পর্ক যে কতটা গভীর, নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (এনসিবি) তদন্তে তা ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে। শুক্রবার পরপর চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস হতে থাকে এনসিবির দপ্তর থেকে। অভিনেতা রকুলপ্রীত সিং স্বীকার করে নিয়েছেন তাঁর বাড়ি থেকে বাজেয়াপ্ত মাদকের মালকিন রিয়া চক্রবর্তী। রিয়ার সঙ্গে তাঁর নিয়মিত মাদক সংক্রান্ত কথা হত বলেও স্বীকার করেছেন। তিনি আরও জানান, রিয়া মাদক কিনে রকুলের বাড়িতে রাখতেন। তবে রকুল নিজে কখনও মাদক সেবন করেননি। শুক্রবার প্রায় চার ঘণ্টা রকুলকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এনসিবি। তার আগে বৃহস্পতিবার অভিনেতার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে মাদক বাজেয়াপ্ত করেছিল তারা। রকুলের বয়ান খতিয়ে দেখে আদালতে পেশ করা হবে।
নারকোটিক্স ব্যুরো জানিয়ে দেয় বিতর্কিত হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের অ্যাডমিন আর কেউ নন, দীপিকা পাড়ুকোন। তিনিই ওই মাদক গ্রুপ তৈরি করে নানা সদস্যকে যোগ করেছিলেন। দীপিকা ও সুশান্তের ট্যালেন্ট ম্যানেজার জয়া সাহা গ্রুপের আরেক অ্যাডমিন। দীপিকার ম্যানেজার করিশ্মা প্রকাশ ছিলেন গ্রুপের অন্যতম সদস্য। এই গ্রুপ চ্যাটেই করিশ্মার কাছে হ্যাশ চেয়েছিলেন দীপিকা। এটা পরিষ্কার, দীপিকার তৈরি এই গ্রুপের একমাত্র উদ্দেশ্য ছিল মাদক জোগানের কাজটা সহজ করা।
সুশান্তের ট্যালেন্ট ম্যানেজার জয়া সাহাকে পরপর তিনদিন জেরা করেছে এনসিবি। এদিকে, জয়া নাকি নানা হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটের স্ক্রিনশট এনসিবিকে দেখিয়ে মাদক সরবরাহের পদ্ধতি খোলসা করেছেন। জয়ার দাবি, তারকাদের মাদক জোগানোর কাজটা করতেন করিশ্মা। তাঁর এবং দীপিকার মাদকযোগ কত গভীর, দীপিকার জেরার পরে আরও স্পষ্ট হবে।

জনপ্রিয়

Back To Top