আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌‌ বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় মহারাষ্ট্রের রায়গড় জেলায় আছড়ে পড়ল সাইক্লোন নিসর্গ। বেলা ১টা নাগাদ ঢুকল আলিবাগে। উপড়ে ফেলল কয়েক হাজার গাছ। উড়ে গেল পর পর বাড়ির টিনের চাল। ভারতীয় আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী ৩ ঘণ্টার মধ্যেই নিজেকে গুটিয়ে নেয় সে। সন্ধে ৭টা পর্যন্ত মুম্বই বিমানবন্দরে বন্ধ থাকল বিমান।
স্থলভাগে নিসর্গ আছড়ে পড়ার সময় গতিবেগ ছিল ১০০ থেকে ১১০ কিলোমিটার। আলিবাগে ঝড়ের গতিবেগ ১০২ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। কোলাবায় এই গতিবেগ ৩৩, সান্তাক্রুজে ২২ কিলোমিটার। সবথেকে বেশি বৃষ্টি হয়েছে আলিবাগে। আবহাওয়া দফতর আরও জানিয়েছে, সাইক্লোনের কেন্দ্র মহারাষ্ট্র উপকূলের খুব কাছেই ছিল।  
স্বাভাবিকভাবেই স্বস্তি পেয়েছে মুম্বই। সেখানে ঝড়–বৃষ্টি হলেও তা প্রবল নয়। কিছু গাছ উপড়ে পড়েছে। তাছাড়া তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তবে কোথাও কোথাও ছ’‌ ফুট উচ্চতায় ঢেউ দেখা গেছে। আশঙ্কা, উপকূলবর্তী নীচু জায়গা জলে ডুবে যেতে পারে।
মহারাষ্ট্র অবশ্য আগেভাগেই প্রস্তুত থেকেছে সাইক্লোন মোকাবিলা করার জন্য। মুম্বইয়ের উপকূলবর্তী এলাকা থেকে ১০ হাজার মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়েছে বিএমসি। ৩০ হাজার মানুষ নিজেরাই নিরাপদ জায়গায় আশ্রয় নিয়েছেন। মহারাষ্ট্র এবং গুজরাট উপকূলে ইতিমধ্যেই জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর ৪৩টি দল কাজে নেমে পড়েছে। এক–একটি দলে রয়েছেন ৪৫ জন সদস্য। প্রশাসন এবং সরকার বারবার নাগরিকদের ঘরে থাকার আবেদন জানিয়েছেন। 
মনে রাখতে হবে, দেশের মহারাষ্ট্র এবং গুজরাটে সবথেকে বেশি কোপ ফেলেছে করোনা ভাইরাস। শুধু মহারাষ্ট্রেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৭০ হাজার ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে উদ্ধার কাজ সহজ নয়। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নাগরিকদের সরানো হয়েছে নিরাপদ স্থানে। 

জনপ্রিয়

Back To Top