আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ করোনা আবহে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে ভারত। প্রতিদিন নতুন নতুন রেকর্ড গড়ছে দেশের দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বৃহস্পতিবার দেশের দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যাটা পেরিয়ে গিয়েছে ১ লক্ষ ২৬ হাজার। এই নিয়ে গত চারদিনের মধ্যে তিনদিন দেশের দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা লক্ষাধিক। 
বৃহস্পতিবার সকালে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১ লক্ষ ২৬ হাজার ৭৮৯ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যা আগের দিনের থেকে প্রায় ১০ হাজার বেশি। আপাতত দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ২৯ লক্ষ ২৮ হাজার ৫৭৪ জন। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আপাতত মোট মৃতের সংখ্যা ১ লক্ষ ৬৬ হাজার ৮৬২ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৬৮৫ জনের। এই সংখ্যাটাও আগের দিনের থেকে অনেকটা বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনামুক্ত হয়েছেন ৫৯ হাজার ২৫৮ জন। যা দৈনিক আক্রান্তের থেকে অনেক কম। যার ফলে দেশের মোট অ্যাকটিভ কেস একধাক্কায় বেড়ে দাঁড়াল ৯ লক্ষ ১০ হাজার ৩১৯ জন। দেশে এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ১৮ লক্ষ ৫১ হাজার ৩৭৩ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট টিকা পেয়েছেন ৯ কোটি ১ লক্ষ ৯৮ হাজার ৬৭৩ জন।
করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জেরে দিনে দিনে খারাপ হচ্ছে মহারাষ্ট্রের পরিস্থিতি। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৯ হাজার ৯০৭ জন। সে রাজ্যের বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি খারাপ হচ্ছে মুম্বইয়ের অবস্থা। দৈনিক মৃত্যুও ওই রাজ্যে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে মৃত্যু হয়েছে ৩২২ জনের। দেশের মোট সক্রিয় রোগীর অর্ধেকেরও বেশি শুধু মহারাষ্ট্রেই। গত এক সপ্তাহে মহারাষ্ট্রের পাশাপাশি কর্নাটক, ছত্তিসগড়, দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ, পাঞ্জাব, তামিলনাড়ুর মতো রাজ্যগুলির পরিস্থিতিরও অবনতি হচ্ছে। সবথেকে খারাপ অবস্থা হয়েছে ছত্তিসগড়ে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে আক্রান্ত হয়েছেন ১০ হাজার ৩১০ জন। কর্নাটকেও দিন দিন অবনতি হচ্ছে করোনা পরিস্থিতির। একই অবস্থা রাজধানী দিল্লিতেও। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীতে নতুন আক্রান্ত ৫ হাজার ৫০৬ জন। এ বছরে যা এখনও অবধি সর্বোচ্চ। উত্তরপ্রদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ হাজারের বেশি। ক্রমবর্ধমান করোনা সংক্রমণে রাশ টানতে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি রাজ্যে নাইট কারফিউ এবং আংশিক লকডাউন জারি করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আজ ফের বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে বৈঠকে বসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। 
ভারতে যখন সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে, তখনই এই দেশ থেকে যাওয়া পর্যটকদের প্রবেশে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা জারি করল নিউজিল্যান্ড। এমনকি ভারতে থাকা নিউজিল্যান্ডের নাগরিকদের জন্যও এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। অন্তত দু’‌সপ্তাহ এই অবস্থা জারি থাকবে বলে নিউজিল্যান্ড প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন বলেছেন, ‘‌দেশকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে চাই না। তাই সাময়িক এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হল।’‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top