উত্তরপ্রদেশের দেওরিয়ার ঘটনা। এক স্বঘোষিত সাধ্বী পুলিশের দিকে তাঁর তরোয়াল উঁচিয়ে তেড়ে গেলেন। নিজেকে ‘‌মা আদিশক্তি’‌ বলে ডাকেন তিনি। দেশজোড়া লকডাউনের মধ্যে বুধবার তিনি তাঁর আশ্রমে এক ধর্মীয় জমায়েতের ডাক দিয়েছিলেন। পুলিশ এসে তা স্থগিত রাখতে বলে। তখনই ওই সাধ্বীর তেড়ে যাওয়া। ভিডিওয় দেখা গেছে, লাল শাড়ি পরিহিতা সাধ্বী পুলিশের দিকে তেড়ে যাচ্ছেন। তবে এখনও পর্যন্ত কারও বিরুদ্ধেই কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।
 কারও পৌষমাস
দু’‌দিনের মধ্যে দ্বিতীয় বার তল্লাশি। ভিলে পার্লে থানার পুলিশ একটি বেসরকারি গুদামে হানা দিয়ে প্রায় ৪ লক্ষ মাস্ক উদ্ধার করল বুধবার। যার বাজারমূল্য প্রায় এক কোটি টাকা। ২০০টি বাক্সে কালোবাজারে বিক্রির জন্য অথবা বিদেশে রপ্তানির জন্যই মাস্কগুলি রাখা ছিল বলে পুলিশের অনুমান। বিশ্বজোড়া অতিমারী করোনার হাত থেকে বাঁচতে দেশে এখন মাস্কের চাহিদা বিপুল। মঙ্গলবার রাতে বাজারের ভিড় সামলাতে গিয়ে এক পুলিশকর্মীর কাছে খবর আসে, শহর এয়ারপোর্ট এলাকায় একটি গুদামে বিপুল পরিমাণ মাস্ক মজুত রয়েছে।
 শুভবুদ্ধি
কোভিড–১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে চিকিৎসা সরঞ্জামের প্রয়োজন এখন দেশ জুড়ে। তাই অর্ডন্যান্স ফ্যাক্টরি বোর্ড সিদ্ধান্ত নিল, তাদের কারখানাগুলিকে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (‌পিপিই)‌ তৈরির কাজে লাগানোর। বোর্ড একই সঙ্গে ২৮৫ জনকে কোয়ারেন্টিনে রাখার মতো পরিকাঠামো তৈরি করে ফেলেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা বোর্ডের ফ্যাক্টরিগুলির হাসপাতালে এই পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছে।
■ তেমনি মুগুর
নোভেল করোনাভাইরাসের সঙ্গে লড়াইয়ে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মতো ভারতেও লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন চিকিৎসক, চিকিৎসা কর্মীরা। কোথাও কোথাও তাঁদের ভাড়াবাড়ির মালিকেরা অবিলম্বে বাড়ি ছেড়ে দিতে বলছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকার বুধবার সেই  বাড়িওয়ালাদের বিরুদ্ধে কড়া আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ক্ষমতা তুলে দিল জোনাল ডেপুটি কমিশনারদের হাতে। সরকারি বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, এ ধরনের কাজ প্রাণঘাতী ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের মূলেই আঘাত করবে শুধু নয়, অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবাতেও ব্যাঘাত ঘটাবে।
■ দায়িত্ব নিয়ে
করোনাভাইরাস সংক্রমণের মোকাবিলায় দেশব্যাপী ২১ দিন লকডাউনের ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। অনেক সংস্থাই ওয়ার্ক ফ্রম হোম চালু করেছে। তাই একটি শিল্পসংস্থা মোবাইল ব্যবহারকারীদের কাছে অনুরোধ জানাল, তাঁদের ডেটা দায়িত্ব নিয়ে ব্যবহার করতে। যাতে প্রয়োজনীয় পরিষেবা এখনকার সংযোগ–পরিকাঠামোর মধ্যেই সবাই সমানভাবে পেতে পারেন। ইতিমধ্যেই ডেটা ব্যবহার ৩০ শতাংশ বেড়ে গেছে। অনুরোধে আরও বলা হয়েছে, ব্যস্ত সময় ছেড়ে দিয়ে তাঁরা যেন ভোরবেলা বা বেশি রাতে ডেটা ব্যবহার করেন।
■ কীভাবে স্বস্তি
মুখ নীচের দিকে করলে কোভিড–১৯ আক্রান্ত কিছু রোগী তীব্র শ্বাসকষ্টের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন। হাসপাতালে, এমনকী ভেন্টিলেশনে থাকা রোগীদের ওপর সমীক্ষা চালিয়ে শ্বাসকষ্ট কমানোর পন্থা–পদ্ধতি খুঁজে বের করার আপাতত এমন সমাধানই পাওয়া গেছে। শ্বাসকষ্ট নিয়ে একটি মার্কিন চিকিৎসা গবেষণাপত্রে এমনই খবর বেরিয়েছে। চীনের উহান প্রদেশের একটি হাসপাতালে ১২ জন রোগীর ওপর এই সমীক্ষা চালানো হয়েছিল। শ্বাসযন্ত্রের আয়তন, বাতাসের চাপ, অক্সিজেনের জোগান— সবই ছিল এই নিরীক্ষার আওতায়।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top