আজকালের প্রতিবেদন, দিল্লি, ৩০ মে- করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। শনিবার রেকর্ড বৃদ্ধি হল। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তথ্য, ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্ত হয়েছেন ৭,৯৬৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৬৫ জনের। লকডাউন চলাকালীন এর আগে একদিনে এত মানুষ সংক্রমিত হননি। সব মিলিয়ে দেশে করোনা–‌আক্রান্ত ১ লক্ষ ৭৩ হাজার ৭৬৩ জন। আশার খবর, সুস্থ হওয়ার সংখ্যাও বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১১,২৬৪ জন সুস্থ হয়েছেন। মোট আক্রান্তের ৪৭.‌৪০ শতাংশ (‌‌৮২,৩৬৯ জন)‌‌ সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছেন বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে। 
দেশের মধ্যে সর্বাধিক করোনা–‌আক্রান্ত রাজ্য মহারাষ্ট্র। গত ২৪ ঘণ্টায় ওই রাজ্যে ২,৬৮২ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। এর ৫০ শতাংশ আক্রান্ত মুম্বইয়ে। তবে, রাজ্যে ৮ হাজারের বেশি মানুষ সুস্থ হয়েছেন। এদিকে, দিল্লিতে করোনা সংক্রমণ বাড়লেও আতঙ্কিত না হওয়ারই বার্তা দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। রাজধানীতে নতুন করে আক্রান্ত ১,১০৫ জন। কেজরিওয়াল জানিয়েছেন, ১৭,৩৮৬ জন আক্রান্তের মধ্যে ৭,৮৪৬ জন সুস্থ হয়েছেন। ৩৯৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দিল্লি সরকার একটি অ্যাপ চালু করতে চলেছে। কোন হাসপাতালে কত সংখ্যক বেড রয়েছে, তা জানতে পারবেন দিল্লিবাসী। কেজরিওয়াল জানান, এই মুহূর্তে করোনার সক্রিয় কেস ৯,১৪২ জনের। তাঁদের মাত্র ২,১০০ জন হাসপাতালে। বাকিরা হোম আইসোলেশনে। মুখ্যমন্ত্রীকে চিন্তায় রেখেছে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যাবৃদ্ধি ও হাসপাতালে শয্যাভাব। এদিনই রাজধানীর ১০টি হোটেলকে আইসোলেশন সেন্টার হিসাবে ভাড়া নিয়েছে দিল্লি সরকার। 
দক্ষিণের তামিলনাড়ুতেও হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণ। মহারাষ্ট্রের পর তামিলনাড়ুই দ্বিতীয় সর্বাধিক সংক্রমিত রাজ্য। গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৫৬ জনের বেশি করোনা পজিটিভ। মৃত্যু ৬ জনের। সব মিলিয়ে তামিলনাড়ুতে ২১,১৪৮ জন আক্রান্ত, মৃত্যু হয়েছে ১৬০ জনের। এদিকে, গুজরাটে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬ হাজার ছাড়িয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা লুকানোর অভিযোগ করেছে গুজরাট কংগ্রেস। বলেছে, প্রতিদিন জেলাওয়াড়ি করোনা–‌তথ্য প্রকাশ করা হচ্ছে না। অন্যদিকে, উত্তরপ্রদেশের প্রিন্সিপ্যাল সেক্রেটারি ‌(‌স্বাস্থ্য)‌‌ অমিতমোহন প্রসাদ জানিয়েছেন, রাজ্যে ৪,৪৬২ জন সম্পূর্ণ সুস্থ। সুস্থতার হার ৫৯ শতাংশ। 
কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা জানিয়েছেন, নতুন করে ৮ জন করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬২৪। এর ৫৭৫ জন সুস্থ। কেরলে হটস্পট ১০৬টি। অসমে ৪৩ জন নতুন করে আক্রান্ত। রাজ্যে সব মিলিয়ে ১,১০০ জন আক্রান্ত।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top