আবু হায়াত বিশ্বাস, দিল্লি, ১০ জুলাই

দৈনিক করোনা সংক্রমণের ফের নতুন রেকর্ড। একদিনে আক্রান্ত ২৬,৫০৬ জন। ৮ লক্ষের দোরগোড়ায় দেশে এযাবৎ করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তথ্য বলছে, এদিন সকাল আটটা পর্যন্ত সংখ্যাটা হল ৭,৯৩,৮০২। যেভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, তাতে শুক্রবার সারা দিনের মধ্যে নিশ্চিত‌ভাবেই এই সংখ্যা আট লক্ষ পেরিয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে ৭ থেকে ৮ লক্ষে সংক্রমিতের সংখ্যা পৌঁছাতে মাত্র চার দিন লাগবে। পরিসংখ্যান বলছে, এক থেকে প্রথম এক লক্ষে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছাতে লেগেছিল ১১০ দিন। পরবর্তীতে, ৬ লক্ষ থেকে ৭ লক্ষে পৌঁছাতে লেগেছিল মাত্র ৫ দিন। 
দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও চিন্তার কিছু নেই বলে দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। তিনি বলেছেন, দেশে প্রায় ৬৩ শতাংশ রোগী সম্পূর্ণ সুস্থ হয়েছেন। রাজ্য সরকারগুলোকে করোনা নমুনা পরীক্ষা বাড়াতে আরও বেশি সক্রিয় হতে হবে। একইসঙ্গে করোনা আক্রান্তের চিকিৎসায় নজর দিতে হবে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী দাবি করেন, বিশ্বের করোনা আক্রান্ত দেশগুলির মধ্যে মৃত্যুর হার ভারতেই কম। ২.‌৭২ শতাংশ। মৃত্যুর হার ১ শতাংশের নীচে আনাই এখন সরকারের প্রাথমিক লক্ষ্য। বেশি করে পরীক্ষা হলে বেশি করে রোগী চিহ্নিত হবেন এবং চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ হবেন বলে তিনি দাবি করেন।
শুক্রবার সকাল আটটা পর্যন্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রিপোর্ট বলছে, পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৬,৫০৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৯,১৩৮ জন। একইসময়ে ৪৭৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এনও অবধি করোনা থেকে ৪,৯৫,৫১৬ জন সুস্থ হয়েছেন। দেশে সক্রিয় করোনা কেস রয়েছে ২,৭৬,৬৮২টি। সব মিলিয়ে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২১,৬০৪ জনের। মৃতের সংখ্যায় মহারাষ্ট্র (‌৯,৬৬৭)‌‌, দিল্লি (‌‌৩,২৫৮)‌‌, গুজরাট (‌‌২,০০৮)‌‌, তামিলনাড়ু (‌‌১,৭৬৫)‌‌ ও উত্তরপ্রদেশ (‌৮৬২)‌ প্রথম পাঁচটি স্থানে রয়েছে। করোনায় মৃতদের ৮৫ শতাংশই হলেন ৪৫ বছরের বেশি বয়স্ক। ১৪ বছরের কম বয়সিরা মৃতদের মাত্র ১ শতাংশ । ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়স্করা ৩ শতাংশ, এবং ৩০ থেকে ৪৪ বছর বয়স্করা ১১ শতাংশ। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রিপোর্টে বলা হয়েছে, মণিপুর, নাগাল্যান্ড, দাদরা নগর হাভেলি এবং দমন ও দিউ, মিজোরাম, আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ এবং সিকিমে করোনায় কোনও মৃত্যুর ঘটনা নেই। 
নতুন করে সংক্রমণ বাড়তে থাকায় লকডাউনের পথে হেঁটেছে বেশ কয়েকটি রাজ্য। কেন্দ্র জানিয়েছে, দেশে করোনা পরীক্ষার সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে ল্যাব। আইসিএমআর জানিয়েছে, সরকারি ও বেসরকারি ল্যাবগুলি থেকে ৯ জুলাই ২,৮৩,৬৫৯টি করোনা পরীক্ষা হয়েছে। এখনও অবধি ১ কোটি ১০ লক্ষের বেশি পরীক্ষা হয়েছে ল্যাবগুলি থেকে।
ধারাবাহিকভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে মহারাষ্ট্রে। ওই রাজ্যে ৬,৮৭৫ জনের নতুন করে করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। তামিলনাড়ুতে নতুন করে ৪,২৩১ জন আক্রান্ত। দিল্লিতে নতুন করে ২,১৮৭ জন আক্রান্ত। উত্তরপ্রদেশে একদিনে আক্রান্ত ১,২০৬ জন। রাজ্যে ১৩ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করেছে যোগী আদিত্যনাথ সরকার। অন্যদিকে, কর্ণাটকে নতুন করে ২,২২৮ জনের পজিটিভ কেস  ধরা পড়েছে। রাজ্যে ৪৮৬ জনের করোনায় মৃত্যু হয়েছে। তেলেঙ্গানায় ১,৪১০ জন নতুন করে আক্রান্ত। অন্ধ্রপ্রদেশেও নতুন করে ১,৫৫৫ জন আক্রান্ত।‌

জনপ্রিয়

Back To Top