আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌কেরলের সন্ন্যাসিনী ধর্ষণ মামলায় অভিযুক্ত বিশপকে নির্দোষ বলে জানাল জলন্ধর চার্চ। বিশপকে চার্চ প্রথম থেকেই সমর্থন করে গিয়েছে। বিশপের ওপর অভিযোগ ছিল, তিনি যখনই কেরলে কাজের জন্য আসতেন তখনই ওই সন্ন্যাসিনীকে ধর্ষণ করতেন। বিশপের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য ধর্ষিতার পরিবারকে ঘুষের প্রস্তাব দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে। 
জলন্ধরের দ্য মিশনারিজ জানিয়েছে, ধর্ষণ মামলায় সব ধরনের প্রমাণ খতিয়ে দেখার পর দেখা গিয়েছে যে অভিযুক্ত বিশপ নির্দোষ। চার্চের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে, ‘‌বিশপের বিরুদ্ধে ওই সন্ন্যাসিনী সহ আরও পাঁচ সন্ন্যাসিনী ষড়যন্ত্র করে এই ধর্ষণের অভিযোগ এনেছে।’‌ সন্ন্যাসিনীরা অন্য কারোর কথায় প্রভাবিত হয়ে এই কাজ করেছে বলেও জানায় জলন্ধর চার্চ। ২০১৪ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে কেরলের ওই সন্ন্যাসিনীকে জলন্ধরের বিশপ ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ ওঠে। সেই সময় বিশপ কেরলে কাজের জন্য আসতেন।
কেরল হাইকোর্ট সোমবারই রাজ্য সরকারকে এই মামলার তদন্তের অগ্রগতির রিপোর্ট পেশ করতে বলে। বুধবার বিশপ জলন্ধরের যে চার্চে কর্মরত তারা বিশপের সমর্থনে আসে। সেইদিনই কেরল পুলিস তাদের প্রাথমিক তদন্তের পর জানতে পারে যে বিশপ তাঁর ক্ষমতার অপপ্রয়োগ করে সন্ন্যাসিনীকে বহুবার ধর্ষণ করেছে এবং এই তথ্য পুলিস হাইকোর্টকেও জানায়। জলন্ধর চার্চের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ২০১৪ সালের ৫ মে বিশপ কুরুভিলাঙ্গাদ কনভেন্টে মোটেও রাত কাটাননি। বষক্তিগত একটি অনুষ্ঠানে অভিযোগকারি সন্ন্যাসিনীর সঙ্গে বিশপের দেখা হয়। সেখানে কোনও ধর্ষণের ঘটনাই ঘটেনি। কনভেন্টের রেজিস্টার খতিয়ে দেখলেই বোঝা যাবে। কিন্তু সেটার দায়িত্বে রয়েছে ওই সন্ন্যাসিনীর বন্ধু। 

 

 

অভিযুক্ত বিশপ।

জনপ্রিয়

Back To Top