আজকাল ওয়েবডেস্ক: নিজেদের বলে দাবি করা পূর্ব লাদাখের প্যাংগং হ্রদ লাগোয়া ‘‌ফিঙ্গার’‌ অঞ্চলে ম্যান্ডারিন ভাষায় প্রতীক খোদাই করে ফেলেছে চীন। ‘‌ফিঙ্গার ৪’‌ এবং ‘‌ফিঙ্গার ৫’ দুটি অঞ্চলের মাঝে ৮১ মিটার লম্বা এবং ২৫ মিটার চওড়া ম্যান্ডারিন ভাষায় খোদাই করা ওই প্রতীক এতোটাই বড় যে খুব সহজেই উপগ্রহ চিত্রে তা ধরা পড়েছে। এছাড়াও এসপ্তাহের শুরুতেই তিব্বতে চীনা বাহিনীর ওভারঅল কমান্ডার ওয়াং হাজিয়াং–কে দেখা গিয়েছে ভারত–চীন সীমান্ত বরাবর অঞ্চলে চীনের মানচিত্র নতুনভাবে আঁকছেন তিনি।
এই ‘‌ফিঙ্গার’‌ অঞ্চল উঁচুতে অবস্থিত প্যাংগং হ্রদের তীরে। ভারতের বিশ্বাস, ‘‌ফিঙ্গার ১’‌ থেকে ‘‌ফিঙ্গার ৮’‌ পর্যন্ত অঞ্চলে তার টহলদারির অধিকার আছে। উল্টো দিকে চীনের বিশ্বাস  ‘‌ফিঙ্গার ৮’‌ থেকে ‘‌ফিঙ্গার ৪’‌ পর্যন্ত অঞ্চল তার টহলদারির এক্তিয়ারভুক্ত। গত মে–তে দুপক্ষের মধ্যে হওয়া হাতাহাতির পর ‘‌ফিঙ্গার ৪’‌–ই আপাতত দুদেশের মধ্যের সীমান্ত। ওই গন্ডগোলে বহু ভারতীয় জওয়ান জখম হয়েছিলেন। এখন পিএলএ কোনওমতেই ভারতীয় বাহিনীকে ‘‌ফিঙ্গার ৪’‌ অতিক্রম করে ‘‌ফিঙ্গার ৮’ অবধি আসতে দিচ্ছে না। 
উপগ্রহ চিত্রে আরও ধরা পড়েছে, প্যাংগং হৃদের তীরবর্তী অঞ্চল থেকে চীনের ভূমির কিনার বরাবর আট কিলোমিটার পর্যন্ত নানা আকারের ১৮৬টি কুঁড়েঘর, আশ্রয় শিবির এবং তাঁবু গড়া হয়েছে। ‘‌ফিঙ্গার ৫’–এর কাছে পরিখা কাটা হয়েছে। ‘‌ফিঙ্গার ৪’‌–এ চীনা স্থাপত্য গড়া হয়েছে। তবে ‘‌ফিঙ্গার ১’‌ থেকে ‘‌ফিঙ্গার ৩’‌ পর্যন্ত ভারতীয় অবস্থানের দিকে চীনের গতিবিধির সেভাবে এখনও প্রমাণ মেলেনি।
মঙ্গলবার তৃতীয়বারের জন্য দুদেশের লেফটেন্যান্ট জেনারেল পর্যায়ে বৈঠক বসে লাদাখের চুশুলে। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার বিতর্কিত অঞ্চলে চীনের দখল নিয়ে ভারতকে বেশ কিছু সমঝোতা করতে হচ্ছে। পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণভাবে সেনা সরানো নিয়েই আলোচনা হচ্ছে বৈঠকে।   ‌

জনপ্রিয়

Back To Top