আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দিল্লির সিঙ্ঘু সীমানায় চার কৃষক নেতাকে খুনের বিরাট ‘‌ষড়যন্ত্র’ ফাঁস। শুক্রবারই এক মুখোশধারী যুবককে পাকড়াও করেছেন কৃষকরা। জেরা করে জানা গেছে, কৃষক আন্দোলনে ‘‌হিংসা’ ছড়াতে এবং প্রজাতন্ত্র দিবসে কৃষকদের ট্রাক্টর মিছিল বানচাল করতে ‌‌১০ জনের একটা দল কৃষকদের ভিড়ে মিশে গেছে। তাঁদের মধ্যে একজনকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন কৃষকরা। 
মুখোশধারী যুবককে ধরার পর তাঁকে সংবাদমাধ্যমের সামনে নিয়ে আসেন কৃষক নেতারা। সাদা কাপড়ে মুখ ঢাকা ওই ব্যক্তির। বলেন, ‘‌চার কৃষক নেতাকে গুলি করে মারার পরিকল্পনা ছিল আমাদের।’ কৃষকরা জানান, ১০ জনের ওই দল দু’‌ভাগে ভাগ ছড়িয়ে পড়েছেন আন্দোলনকারী কৃষকদের মাঝে। ওই দলে দু’জন মহিলাও রয়েছেন। মুখোশধারী ব্যক্তি সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ‘‌ওই দুই মহিলার কাজ ছিল, যৌন হেনস্থার মিথ্যে অভিযোগ তুলে বিক্ষোভের জায়গায় গণ্ডগোল বাধানো।’‌ আর সেই সময়েই এলাকায় গুলি ছোড়ার পরিকল্পনা ছিল তাঁদের, যাতে পুলিশ মনে করে, কৃষকরাই গুলি ছুড়েছেন। শুধু তাই নয়, এই কাজের জন্য নাকি এক পুলিশ আধিকারিকই তাঁদের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। ওই ব্যক্তির দাবি, ‘‌গত ১৯ জানুয়ারি থেকে আমরা এখানে আছি। আন্দোলনকারী কাছে কোনও বন্দুক রয়েছে কিনা, তা খুঁজে বের করতে বলা হয়েছে আমাদের।’‌
এক কৃষক নেতা সংবাদমাধ্যমে জানান, ‘‌২৬ জানুয়ারি এঁরা পুলিশের ওপর গুলি ছোড়ার পরিকল্পনা করে এসেছে এখানে। যাতে পুলিশ মনে করে, কৃষকরাই গুলি ছুড়ছেন। যে চার কৃষক নেতাকে খুন করার পরিকল্পনা করা হয়েছে, তাঁদের ছবি চিহ্নিত করেছেন ওই ব্যক্তি। ২৩ জানুয়ারির পর ওই ঘটনা ঘটানোর পরিকল্পনা ছিল তাঁদের।’‌  
কৃষক এবং সংবাদমাধ্যমের সামনে সবকিছু স্বীকার করে নেওয়ার পর পুলিশের কাছে গিয়েই বয়ান বদল করেছেন ওই ব্যক্তি। বলেছেন, তাঁকে মারধর করে মদ খাইয়ে মিথ্যে বয়ান দিতে বাধ্য করেছেন কৃষকরা। সংবাদমাধ্যমের সামনে বয়ান বদলালে নাকি খুনেরও হুমকি দিয়েছেন আন্দোলনকারী চাষিরা। যদিও বলবীর সিং, রাজেওয়াল, বলদেব সিং সিরসা, কুলদীপ সাঁধু এবং জগজিৎ সিং নামে যে চার কৃষক নেতাকে খুনের ষড়যন্ত্রে অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি, তাঁদের ছবিও পাওয়া গেছে তাঁর ফোন থেকে, জানিয়েছে হরিয়ানা পুলিশ। 
জানা গেছে, ২০১৬ সালের জাট বিক্ষোভের হিংসার ঘটনার সঙ্গেও জড়িত ছিলেন ধৃত ওই মুখোশধারী। শুধু তাই নয়, হরিয়ানার কার্নালে কৃষকদের ওপর লাঠিচার্যের ঘটনায় তিনি জড়িয়ে ছিলেন।  

জনপ্রিয়

Back To Top