আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ হিন্দু দেশ ভারত। মুসলিমরা এসেছে বাইরে থেকে। কাজেই তারা আশ্রিত। সেই ভাবধারা বজায় রাখতেই দেশের ইতিহাসটাই ধুয়ে মুছে সাফ করে একটা নতুন ইতিহাস তৈরি করতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দলের সদস্যরা। এই নিয়ে একটি কমিটিও গঠন করে ফেলেছেন মোদি। সবটাই হচ্ছে চুপিসারে। গত ৬ মাস ধরে ভারতের ইতিহাস নতুন করে লেখার কাজ শুরু করেছেন তাবড় ইতিহাসবিদরা। ১৪ জন ইতিহাসবিদ সেই কর্মযজ্ঞে মশগুল। 
নতুন ইতিহাসে থাকবে না কোনও মুঘল সাম্রাজ্য। সেখানে আকবর আর থাকবেন না সম্প্রীতির সম্রাটের আসনে। অনেকটা আলাউদ্দিন খলজি এবং মহম্মদ ঘোরির মতই তৈরি হিন্দু বিরোধী শক্তি হিসেবে তুলে ধরা হবে আকবরকে। মুঘল সাম্রাজ্যের ধর্মান্তকরণের দিকটা বেশি করে লেখা থাকবে সেই ইতিহাসে। মুঘলরা আসার আগে ভারতে যে কেবল হিন্দুদের দেশ ছিল সেটা বোঝানোর প্রবল চেষ্টা চলবে এই নতুন ইতিহাসে। আকবরের রাজপুতানি রানি শুধুমাত্র ‘‌লাভ জিহাদে’ প্রাচীন রূপ সেটা প্রকট করতে বদ্ধ পরিকর আরএসএস। যেভাবে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের নেতিবাচক দিকটাই আমরা ইতিহাসে পড়ি। ঠিক সেভাবেই মুঘল সাম্রাজ্যের সেদিকটাই তুলে ধরা হবে। মুঘল সাম্রাজ্য থেকেই যে ভারত লুঠের প্রবণতা তৈরি হয়েছিল, সেটা তুলে ধরতে বলা হয়েছে ইতিহাসবিদদের। 
কমিটির চেয়ারম্যান কে এন দিক্ষিত জানিয়েছেন, আমাকে এমন কিছু তথ্য দিতে বলা হয়েছে যাতে ইতিহাস নতুন করে লিখতে সুবিধা হয় কমিটির সদস্যদের। ‌মজলিসে ইত্তেহাদুল মুসলিমেন–এর প্রধান আসাউদ্দিন ওয়াসির দাবি, দেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে সমানভাবে অংশ নিয়েছিল মুলসিমরা। সেসময় কখনোই তাঁদের আলাদা চোখে দেখা হত না। কিন্তু দেশের সরকার এখন মুসলিমদের দ্বিতীয় স্তরের নাগরিক হিসেবে দেখাতে চায়। 
ইতিমধ্যেই রাজস্থানের স্কুল পাঠ্যে সম্রাট আকবরকে দেশের শত্রু হিসেবেই তুলে ধরা হয়েছে। সেই ধারাতেই লেখা হচ্ছে দেশের নতুন ইতিহাস। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top