আজকাল ওয়েবডেস্ক: বম্বে হাইকোর্টে জোর ধাক্কা খেল কংগ্রেস। একইসঙ্গে অন্তর্বর্তীকালীন স্বস্তি পেলেন বেসরকারি সর্বভারতীয় টিভি চ্যানেলের প্রধান সম্পাদক অর্ণব গোস্বামী। মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি উজ্জ্বল ভুঁইঞা এবং বিচারপতি রিয়াজ চাগলার ডিভিশন বেঞ্চ তাঁর বিরুদ্ধে গত ২২ এপ্রিল এবং গত দোসরা মে দায়ের করা দুটি এফআইআর–ই সাসপেন্ড করেছে। হাইকোর্ট বলেছে, পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত অর্ণবের বিরুদ্ধে কোনও জবরদস্তিমূলক পদক্ষেপ করা যাবে না এবং প্রাথমিকভাবে তাঁর বিরুদ্ধে কোনও মামলা রুজু হয়নি। কোনও অপরাধও প্রমাণিত হয়নি। অর্ণব গণ সম্প্রীতি ভঙ্গ করতে চেষ্টা করছেন এমন কিছুও দেখা যায়নি। যদিও আবেদনকারীর আবেদনে স্বীকৃতি দিয়েই হাইকোর্ট বলেছে, পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত অর্ণবের বিরুদ্ধে কোনও বাধ্যতামূলক পদক্ষেপ যেন না করা হয়। পালঘর গণপ্রহারে হত্যাকাণ্ড এবং পশ্চিম বান্দ্রায় পরিযায়ীদের জমায়েত নিয়ে নিজের টিভি শো–তে উস্কানিমূলক মন্তব্যের অভিযোগেই এফআইআর দায়ের হয়েছিল।
অর্ণবের বিরুদ্ধে অভিযোগ, পালঘরে দুজন সাধু এবং তাঁদের গাড়িচালকের গণপ্রহারে হত্যায় কংগ্রেসের অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধির মদত ছিল বলে গত ২১ এপ্রিল নিজের টিভি শো–তে  প্রশ্ন তুলেছিলেন তিনি। পরদিন তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর রুজু হয়। তারপর গত ১৪ এপ্রিল বান্দ্রা স্টেশনের বাইরে পরিযায়ী শ্রমিকদের জমায়েত নিয়ে ২৯ এপ্রিলের শো–তে উস্কানিমূলক মন্তব্যের জন্যও অর্ণবের বিরুদ্ধে এফআইআর রুজু  হয়।
এরপর গত ৯ তারিখ হাইকোর্ট অর্ণবকে নির্দেশ দেয় পরদিন এনএম জোশি মার্গ থানায় উপস্থিত হতে জেরার জন্য। গত ১২ তারিখ হাইকোর্ট আগেই অর্ণবকে সুরক্ষা দিয়েছিল যাতে আগামী নির্দেশ পর্যন্ত তাঁর বিরুদ্ধে কোনও বাধ্যতামূলক পদক্ষেপ না করা যায়। অর্ণবের দাখিল করা ফৌজদারি রিট পিটিশনে স্থগিতাদেশ দেয়।
এর আগে গত ১৯ মে সুপ্রিম কোর্ট  এফআইআর খারিজ এবং সিবিআই–কে মামলাগুলি হস্তান্তরিতের আবেদন জানিয়ে করা অর্ণবের পিটিশন বাতিল করে দেয়। আগামী তিন সপ্তাহ গ্রেপ্তার হওয়া ঠেকাতে অর্ণবের পিটিশনও বাতিল হয় শীর্ষ আদালতে। তারপর গত ১২ তারিখ অর্ণবের পক্ষে দুই আইনজীবী হরিশ সালভে এবং মিলিন্দ সাঠে তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের প্রতিটি আইনি ধারায় ব্যাখ্যা দেন। সেখানে তাঁরা পালঘর এবং বান্দ্রা স্টেশন নিয়ে করা অর্ণবের কোনও মন্তব্যের যে রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি ছিল না সেকথায় জোর দেন। সালভে বলেন, অর্ণবের মন্তব্য নাকি উদ্দীপনামূলক সাংবাদিকতার উদাহরণ। কিন্তু বিপক্ষের আইনজীবী কপিল সিবল এবং রাজা ঠাকরে সওয়ালে সেই দাবি নস্যাৎ করে বলেন, অর্ণবের মন্তব্য মানুষের অনুভবকে আঘাত করেছে এবং এর তদন্তের দাবিও তোলেন তাঁরা।  ‌  

জনপ্রিয়

Back To Top