মুম্বইয়ের আবাসনে কি নকল টিকা দেওয়া হল! সিরাম সংস্থাকে চিঠি বিএমসি-র 

আজকাল ওয়েবডেস্ক: মুম্বইয়ের হীরানন্দানি হেরিটেজ হাউজিং সোসাইটিতে টিকাকরণে ব্যবহৃত কোভিশিল্ড টিকা আসল না নকল তা জানতে চায় বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপাল কর্পোরেশন (বিএমসি)। টিকাকরণে ববহৃত ভায়ালের ব্যাচ নম্বরের বিশদ বিবরণ চেয়ে তাই সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়াকে চিঠি পাঠানো হল।
বিএমসি-র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘আমরা সিরামকে একটি ই-মেল করে ব্যবহৃত ভায়ালের ব্যাচ নম্বর জানিয়েছি। সেই ভায়ালগুলি কোন হাসপাতাল থেকে এসেছে তা জানতে চাই। ম্যানুফ্যাকচারারের (সিরাম) জবাব এলেই আমরা সবদিকে অনুসন্ধান করতে পারব।’ 
বিএমসি-র এক বড় কর্তা বলছেন, ‘যদি ভায়ালগুলো কোনও নির্দিষ্ট হাসপাতালকে দেওয়া হয় তাহলে আমরা খোঁজ নিয়ে দেখব সেই হাসপাতালই আবাসনে ভায়ালগুলো পাঠিয়েছে কি না। যদি তা না হয়, তবে পুলিশ খতিয়ে দেখবে অভিযুক্ত পক্ষ কীভাবে ভায়ালগুলো পেল। কালোবাজারের আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। দেখতে হবে ওই টিকাগুলো কোনও টিকাকেন্দ্র থেকে সরিয়ে আনা হয়েছে কি না। যদি দেখা যায় সেগুলো অন্য রাজ্য থেকে এসেছে, তাহলেও খোঁজ নিতে হবে কীভাবে সেগুলো শহরে ঢুকল।’
৩০ মে কান্দিভালি ওয়েস্টের হীরানন্দানি হেরিটেজ আবাসনের ৩৯০ জন বাসিন্দা কোভিশিল্ড টিকা নিয়েছিলেন। মাথাপিছু ১২৬০ টাকা হিসেবে আবাসনের তরফে দেওয়া হয় মোট ৪,৫৬,০০০ টাকা। কিন্তু সেই টিকাকরণ দলের কাছে কোনও ল্যাপটপ ছিল না। টিকাকরণের সার্টিফিকেট দেওয়া হয়েছিল বিভিন্ন হাসপাতালের নামে। আবাসনের বাসিন্দা এই নিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন এবং সম্ভাব্য টিকা-কেলেঙ্কারির রহস্য ঘনীভূত হয়।