‌সংবাদ সংস্থা, দিল্লি, ১০ জুলাই

মুখ খোলার সুযোগও হয়তো পাবে না। পাঁচ সাকরেদের মতোই এনকাউন্টারে খতম হয়ে যেতে পারে বিকাশ দুবে। এই আশঙ্কায় বিকাশকে বাঁচাতে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতেই সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন আইনজীবী ঘনশ্যাম উপাধ্যায়। তার কয়েক ঘণ্টা পরই নিকেশ হয়ে গেল বিকাশ। বিকাশের সঙ্গে কাদের যোগাযোগ ছিল, তদন্ত মারফত জানতে চেয়েছিলেন আইনজীবী উপাধ্যায়। প্রশাসনের নির্দেশে বিকাশের বাড়ি, শপিং মল, একাধিক বিলাসবহুল গাড়ি ভেঙে দেওয়ার ঘটনায় এফআইআর করা এবং সাকরেদদের এনকাউন্টারে পুলিশের ভূমিকার তদন্তের আর্জিও জানান তিনি।  আবেদনে উল্লেখ রয়েছে, ‘‌বিকাশ উত্তরপ্রদেশ পুলিশের হেফাজতে গেলে আর রক্ষে নেই। খুন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ঠিক যেভাবে তার পাঁচ সঙ্গীকে মারা হয়েছে সেভাবে মারা হতে পারে বিকাশকে। পুলিশ এনকাউন্টারের নাম করে অভিযুক্তদের মেরে দিচ্ছে। জঘন্য অপরাধ। মানবাধিকার লঙ্ঘনের নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত। ’‌  তাঁর বক্তব্য, ‌‌অভিযুক্ত বা অপরাধী যেই হোক বিচারে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর তাকে আইন মোতাবেক শাস্তি দেবে আদালত। পুলিশ নিজের এক্তিয়ার ছাড়িয়ে অভিযুক্তকে এনকাউন্টারের নামে খুন করতে পারে না।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top