আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‘‌আমার কিছু হবে না, অন্যের হয় হোক।’‌ এই চিন্তাভাবনাই এদেশে করোনা সংক্রমণ বাড়াচ্ছে। চিকিৎসকরা আগেই সতর্ক করেছেন। কথাটা ভুল নয়। এই চিন্তাভাবনা থেকেই ছেলের বিয়েতে এলাহি আয়োজন করল বরপক্ষ। বুড়ো আঙুল দেখাল সামাজিক দূরত্ব বিধিকে। ফল ভুগলেন পাত্র। বিয়ের দু’‌দিন পরেই মারা গেলেন। কোভিড আক্রান্ত হলেন আরও ৯৫ জন। বিহারের পালিগঞ্জের ঘটনা।
বরের যদিও কোভিড টেস্ট করানো হয়নি। তবে কোভিডের লক্ষণ ছিল তাঁর। হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত্যু হয়। কোভিড পরীক্ষার আগেই পরিবার দাহ করে দেয়। মৃত্যুর খবর পৌঁছয় পাটনার জেলাশাসকের কাছে। তাঁর নির্দেশে বর–কনের পরিবারের ঘনিষ্ঠদের কোভিড পরীক্ষা হয়। ১৫ জনের সংক্রমণ ধরা পড়ে। সোমবার আরও ৮০ জন অতিথি করোনা সংক্রামিত হয়েছে। সকলেই ১৫ জুন বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন। যদিও কনের সংক্রমণ ধরা পড়েনি। এর আগে এত ব্যপকভাবে বিহারে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েনি। প্রশাসনের মাথায় হাত।
পাত্র পেশায় ইঞ্জিনিয়ার। গুরুগ্রামে থাকতেন। ১২ জুন বিয়ের জন্য বিহারের দিহ্‌পালি গ্রামে ফেরেন। তখন থেকেই ৩০ বছরের যুবকের মধ্যে করোনার লক্ষণ দেখা যায়। কিন্তু পরিবারের লোক চিকিৎসকের কাছে না গিয়ে ছেলের বিয়ে দিয়ে দেন। বিয়ের দু’‌দিন পর তাঁর অবস্থার অবনতি হয়। তাঁকে পাটনার এইমস–এ ভর্তি করানো হয়। সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর। 
এর পর বিয়েতে আসা সকল অতিথিদের করোনা পরীক্ষা হয়। ৯৫ জনের সংক্রমণ ধরা পড়ে। জেলাশাসক জানিয়েছেন, নিয়ম অনুসারে বিয়ে বা কোনও অনুষ্ঠানে ৫০ জনের বেশি অতিথি আসতে পারেন না। অথচ এই বিয়েতে সব নিয়ম লঙ্ঘিত হয়েছে। পরিবার কোনও নির্দেশিকাই মানেনি। 

জনপ্রিয়

Back To Top