আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ একজন বা দু’‌জন নয়। পাঁচজন স্ত্রী। তাঁদের ভরণপোষণ ও শখ মেটাতে গিয়ে নাভিশ্বাস উঠছিল স্বামীর। শেষমেশ স্ত্রীদের শখ মেটানোর জন্য অন্য মহিলাদের চাকরির ফাঁদে ফেলে টাকা রোজগার করতে শুরু করেছিল গুণধর স্বামী। রীতিমতো চক্র খুলে ফেলেছিল। অবশেষে পুলিশের জালে ধরা পড়েছে অভিযুক্ত ব্যক্তি। 
মধ্যপ্রদেশ পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের কাছে খবর ছিল, একটি চক্র মহিলাদের চাকরির টোপ দিচ্ছে। তাও আবার ভোপালের অল ইন্ডিয়া মেডিকেল সায়েন্সে চাকরির টোপ। নার্সের চাকরি দেওয়ার নাম করে অন্তত ৫০ জন মহিলার সঙ্গে প্রতারণা করেছে চক্রটি। মোটা টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তদন্তে নেমে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে প্রতারণা চক্রের মাথা দিলশাদ খানকে। সে জবলপুরের বাসিন্দা। তার সহকারী ভোপালের অলোক কুমারকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ৫০ এর অধিক মহিলার সঙ্গে প্রতারণা করেছে চক্রটি। 
দিলশাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গেছে, পাঁচ স্ত্রীর ভরণপোষণ ও শখ মেটাতেই এই প্রতারণা চক্র খুলেছিল সে। তার এক স্ত্রী জবলপুরে একটি বেসরকারী ক্লিনিক চালায়। অপর অভিযুক্ত অলোক কুমারের স্ত্রী আবার একটি সরকারি মহিলা হোস্টেলের সুপারিন্টেডেন্ট। দুই মহিলার এই চক্রের সঙ্গে কোনও যোগাযোগ আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। জানা গেছে, শিক্ষিত মহিলাদেরই ফাঁদে ফেলত এই চক্র। 

জনপ্রিয়

Back To Top