আজকালের প্রতিবেদন: অরুণাচল প্রদেশের প্রত্যন্ত এলাকায় আটকে পড়েছেন এ রাজ্যের ১৮ জন যুবক। তাঁরা সকলেই ঠিকাদার সংস্থার হয়ে ভারত সরকারের কাজ করার জন্য সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু লকডাউন ঘোষিত হওয়ায় আটকে পড়েন পূর্ব সিয়াং জেলার ওয়ান শহরে। কলকাতা, বীরভূম, হুগলি থেকে যাওয়া শিক্ষিত যুবকদের দলটি চরম বিপাকে পড়ে। খাদ্য সঙ্কট দেখা দেয়। খবরটি প্রকাশিত হয় আজকাল–‌এ। আর তাতেই সমস্যার আপাতত সমাধান হয়েছে বলে জানিয়েছেন আটকে পড়া দলটির প্রধান অংশুমান চক্রবর্তী।
ওয়ান থেকে অংশুমান জানান, অরুণাচলে তাঁদের সমস্যার খবরটি নজরে পড়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির। তাঁর নির্দেশে মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয় থেকে তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। জানানো হয়, বাংলার সরকার এ বিষয়ে অরুণাচল প্রদেশ সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করবে। যতটুকু সম্ভব সহযোগিতার আশ্বাস দেন তাঁরা। এতেই মনোবল অনেকটা বেড়ে যায় অংশুমানদের। তাঁরা জানান, প্রত্যন্ত এলাকা থেকে ঘরে ফেরা এখন সম্ভব নয়। তবু বাংলার সরকার পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় তাঁরা খুশি।
অংশুমানদের সমস্যার কথা আজকাল–‌এ পড়ে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেন কংগ্রেস নেতা দেবপ্রসাদ রায়। অরুণাচলে এনআইসি–‌তে কর্মরত দিবাকর রায়ের মাধ্যমে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। স্থানীয় সার্কেল ইনপেক্টরের মাধ্যমে সাময়িকভাবে সব ধরনের সহযোগিতা তাঁরা পাচ্ছেন বলে অংশুমান জানিয়েছেন। ইটানগর থেকে দিবাকরবাবু জানিয়েছেন, এনআইসি–‌র পরিকাঠামোকে কাজে লাগিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে  সাহায্যের চেষ্টা করেছেন তিনি।
দেবপ্রসাদবাবু জানান, যুব কংগ্রেস বা সেবাদলের দায়িত্বে থাকার সময় গোটা দেশেই তাঁর বহু কংগ্রেস নেতার সঙ্গে বন্ধুত্ব হয়। সেই বন্ধুত্বকেই কাজে লাগিয়েছেন।‌

জনপ্রিয়

Back To Top