আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ আয়ুর্বেদের প্রচারে এককথায় প্রাণ ঢেলে দিয়েছেন তিনি। ইতিমধ্যে দেশে জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছে রামদেবের পতঞ্জলির সামগ্রী। ভেষজ ওষধি থেকে শুরু করে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী, সবই আয়ুর্বেদিক। এবার গাঁজাকেও আয়ুর্বেদিক হিসেবে তুলে ধরতে চান রামদেব। তাঁর দাবি গাঁজার এমন কিছু ভেষজ গুণ রয়েছে যা মানুষের উপকারে আসে। এমনকী ওষুধ তৈরিতেও গাঁজার ভেষজগুণ নাকি অপরিসীম। বহু প্রাচীণ কালেও ভারতের মুনিঋষিরা নাকি গাঁজার পাতা দিয়ে নানা ওষুধ তৈরি করে চিকিৎসা করতেন। পতঞ্জলির চিফ এগজিকিউটিভ এবং বাবা রামদেবের সহযোগী বালকৃষ্ণ জানিয়েছেন, তাঁরা চাইছেন গাঁজার চাষ আইনসিদ্ধ করতে।

তাহলে সেটি দিয়ে একাধিক ওষুধ তৈরি করতে পারবেন তাঁরা। 
হরিদ্বারের পতঞ্জলি গবেষণাগারে প্রায় ৩০০ বিজ্ঞানী প্রতিমুহূর্তে নানা ভেষজ উদ্ভিদ নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করছেন। তাঁরাই উদ্ভাবন করেছেন গাঁজার প্রায় ২০০ রকমের উপকারিতা রয়েছে। কিন্তু ভারতে যেহেতু গাঁজার চাষ আইন বিরুদ্ধে সেকারণে এই ওষুধগুলি তৈরি করা যাচ্ছে না। একাধিক দেশে গাঁজার চাষ আইনত সিদ্ধ। সেই পথে যাতে ভারত এগোয় তার দাবি জানিয়েছেন রামদেব। 
আমেরিকা শুধু মাত্র গাঁজা থেকে বছরে কয়েক হাজার কোটি টাকা লাভ করে। এর পুরোটাই ব্যবহৃত হয় ওষুধ তৈরিতে। কানাডাতেও ওষুধ তৈরির জন্য গাঁজার চাষ চাষ বৈধ। ভারতে গাঁজার চাষ বৈধ হলে সাধারণ মানুষের উপকারে তা ব্যবহার করা যাবে বলে জানিয়েছেন রামদেব। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top