সংবাদ সংস্থা, দিল্লি: শনিবার সুপ্রিম কোর্ট অযোধ্যা মামলার রায় দেবে। সকাল সাড় দশটায় বসবে এজলাস। দীর্ঘদিনে ঝুলে থাকা মামলার রায় নিয়ে উৎকণ্ঠা, উদ্বেগ দেশ জুড়ে। রায় ঘোষণার আগে শুক্রবার প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ তলব করেছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যসচিব রাজেন্দ্র কুমার এবং ডিজি ওম প্রকাশ সিংকে। অযোধ্যা–‌সহ গোটা রাজ্যের নিরাপত্তার আগাম কী বন্দোবস্ত করা হয়েছে জেনে নেন তিনি। রায়ের পরে কোনও উত্তেজক পরিস্থিতি তৈরি হলে তার মোকাবিলায় কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, তাও জানতে চান তিনি। আগামী ১৭ নভেম্বর প্রধান বিচারপতির পদ থেকে অবসর নিচ্ছেন গগৈ। তার আগেই ঐতিহাসিক মামলাটির রায় দিয়ে যেতে চান তিনি। পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চে টানা ৪০ দিন শুনানি হয়েছে। গগৈয়ের শেষ কাজের দিন ১৫ নভেম্বর।
অন্যদিকে বৃহস্পতিবার রাতে লখনউয়ে রাজ্যের পুলিশ–প্রশাসনের কর্তাদের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। প্রায় তিন ঘণ্টার ওই বৈঠকের পর মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন, অযোধ্যা রায়–‌পরবর্তী পরিস্থিতির মোকাবিলায় লখনউ ও অযোধ্যায় দুটি হেলিকপ্টার প্রস্তুত রাখতে হবে। এ ছাড়া পুলিশ–প্রশাসনের অভিজ্ঞ আধিকারিকদের গ্রামে গিয়ে হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলারও নির্দেশ দিয়েছেন। প্রয়োজনে স্পর্শকাতর এলাকায় রাতে ক্যাম্প করে থাকার কথাও বলেছেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়াতেও কড়া নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। 
আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত শহরে চারজনের বেশি জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারি চলছে। কেউ অযোধ্যা রায় নিয়ে বিতর্কিত বা আপত্তিকর কিছু পোস্ট বা শেয়ার করলে ব্যবস্থা নেবে পুলিশ। উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ডিজি ওপি সিং বলেছেন, ‘শহরে পুলিশি টহল চলছে। বিভিন্ন অঞ্চলে শান্তি কমিটির বৈঠক করা হচ্ছে। পুলিশ সুপার ও জেলাশাসকদের বলা হয়েছে, সাধারণ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে। কেউ আইন ভাঙছে কিনা সেদিকে কড়া লক্ষ্য রাখা হচ্ছে।’‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top