আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌আমফানের জেরে ক্ষতিগ্রস্ত বাংলা। সবরকম সাহায্য করার আশ্বাস দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বলেন, বাংলার পাশে গোটা দেশ রয়েছে। এদিন তিনি একটি টুইটে লেখেন, ‘‌পশ্চিমবঙ্গের অনেক ছবি দেখলাম। ঘূর্ণিঝড় আমফান বাংলার প্রচুর ক্ষতি করেছে। সারা দেশ বাংলার মানুষের জন্য প্রার্থনা করছে। আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করব যাতে বাংলা স্বাভাবিক ছন্দে ফিরে আসে।’‌ তারপর আরও একটি টুইট করেন মোদি। লেখেন, ‘‌জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় কাজ করছে। প্রশাসনের শীর্ষস্থানীয় অফিসাররা পরিস্থিতির ওপরে নজর রাখছেন। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করছে কেন্দ্রীয় সরকার।’‌ বুধবার আমফান ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে রাজ্যে মোট ৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে। লণ্ডভণ্ড সৈকত শহর দিঘা। ভেঙে পড়েছে শয়ে শয়ে গাছ। কাঁথিতে ধূলিসাৎ বহু কাঁচা বাড়ি। আমফানের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত সুন্দরবন পুলিশ জেলার এসপি অফিস। ক্ষতিগ্রস্ত আরও বেশকিছু সরকারি দপ্তর। কাকদ্বীপ–কুলতলি–কৈখালি–পাথরপ্রতিমায় বাঁধে ফাটল। ভেসে গিয়েছে কচুবেড়িয়া জেটি। গাছ ভেঙে অবরুদ্ধ ১১৭ নম্বর জাতীয় সড়ক। ক্যানিং হাসপাতালে উড়ে গিয়েছে টিনের চাল। আমফানের ধাক্কায় হাওড়ার ব্যাঁটরায় খড়-কুটোর মতো উড়ে যায় স্কুলের টিনের চাল। ভেঙে পড়েছে বহু গাছ, বাড়ি, দোকান বিদ্যুতের খুঁটি। হুগলিতেও তাণ্ডব চালায় ঘূর্ণিঝড় আমফান। শ্রীরামপুরে বিদ্যুত্‍স্পষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছে দুজনের। বাড়ির ওপর ভেঙে পড়ে গাছ। উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট ২ নম্বর ব্লকে গাছ পড়ে যুবকের মৃত্যু। মিনাখাঁয় মৃত্যু হয়েছে এক মহিলার। হিঙ্গলগঞ্জে ধূলিসাত্‍ ঘর-বাড়ি। বিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও বিপর্যস্ত টেলি যোগাযোগ। আমফানের জেরে লণ্ডভণ্ড পশ্চিম মেদিনীপুরও। উড়ে গিয়েছে খড়গপুর স্টেশনের গ্লোসাইন বোর্ড। মেদিনীপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের বাংলো লাগোয়া দোকানের উপর ভেঙে পড়ে গাছ।

 

 

জনপ্রিয়

Back To Top