উপযুক্ত প্রশিক্ষণ নেই!‌ লাদাখ নিয়ন্ত্রণরেখায় তাই সেনার অবস্থান বদলাচ্ছে চিন, বলছেন বিপিন রাওয়াত 

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ গালওয়ান ঘটনার এক বছর কেটে গেলেও সেই স্মৃতি এখনও টাটকা। চীনের অতর্কিত হামলায় অন্তত ২০ জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ হন। পাল্টা জবাব দিয়েছিল ভারতও। তারপর থেকেই লাদাখে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর সেনার অবস্থান বদল করেছে চিন। পাহাড়ি এলাকায় নিজের সৈনিকদের সীমিত প্রশিক্ষণের বিষয়টি বুঝতে পেরেছে তারা। এমনটাই বলছেন ভারতের সেনা সর্বাধিনায়ক জেনারেল বিপিন রাওয়াত। মঙ্গলবার এক সাক্ষাৎকারে চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ রাওয়াত বলেন, ‘‌সীমান্তে সেনার অবস্থান বদল করেছে চিন। বিশেষ করে ২০২০ সালের মে ও জুন মাসে গালওয়ান উপত্যকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় হওয়া সংঘর্ষের পর ফৌজ মোতায়েনের পদ্ধতিতে রদবদল করেছে তারা। চিন বুঝতে পেরেছে যে পাহাড়ি এলাকায় লড়াইয়ের জন্য তাদের সৈনিকদের প্রশিক্ষণ পর্যাপ্ত নয়।’‌ এরপরই রাওয়াতের সংযোজন, ‘‌তিব্বতের পাহাড়ি এলাকায় লড়াই করার জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণের প্রয়োজন। আর পার্বত্য এলাকায় যুদ্ধ করতে আমাদের জওয়ানরা পারদর্শী। তাদের দীর্ঘ দিনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। সেখানে লাগাতার আমাদের ফৌজ টহল দেয়। কিন্তু চিনের ক্ষেত্রে তেমনটা নয়। প্রধানত সমতল এলাকা থেকে চিনের সৈনিকরা আসে। লাদাখের মতো পাহাড়ি জায়গায় স্বল্প সময়ের জন্য মোতায়েন করা হয় তাদের। এসব অঞ্চলে লড়াই করার মতো বিশেষ কোনও অভিজ্ঞতাও তাদের নেই। তবে সীমান্তে চিনা গতিবিধির উপর আমরা কড়া নজর রেখে চলেছি।’‌ এটা ঘটনা শুধু স্থলপথে নয়, আকাশপথেও পূর্ব লাদাখের সীমান্তে কড়া নজরদারি রেখেছে ভারতীয় সেনা।