রাজধানীতে আজ দলীয় সাংসদদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসছেন অভিষেক 

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ২৬ জুলাই দিল্লি যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তার আগেই একুশে জুলাই উদযাপন করে রাতেই দিল্লি চলে গেলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জি। সূত্রের খবর, আজ তৃণমূলের রাজ্যসভার মুখ্য সচেতক সুখেন্দুশেখর রায়ের বাড়িতে সাংসদদের নিয়ে বৈঠকে বসবেন অভিষেক। সংসদের বাদল অধিবেশনে দলের রণনীতি নিয়ে মূলত দুপুরের এই বৈঠকে আলোচনা করবেন অভিষেক।
তৃণমূলের লোকসভার দলনেতা সুদীপ ব্যানার্জি, রাজ্যসভার দলনেতা ডেরেক ও’‌ব্রায়েন, সৌগত রায়, সুখেন্দুশেখর রায়, কল্যাণ ব্যানার্জি, কাকলি ঘোষ দস্তিদার, মহুয়া মৈত্র, শান্তনু সেনদের সামনে মমতা ব্যানার্জির বার্তা তুলে ধরবেন অভিষেক। লোকসভা ও রাজ্যসভার সমস্ত সাংসদ উপস্থিত থাকবেন এই সভায়। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সুখেন্দুশেখরের বাড়িতে আসতে বলা হয়েছে দলের সাংসদদের। আয়োজন করা হয়েছে মধ্যাহ্নভোজের। এই বৈঠকে মুকুল রায়, যশবন্ত সিনহাও থাকবেন। সকালে সংসদ অধিবেশনের শুরুতেই সরকারের একাধিক ‘জনবিরোধী’ নীতি, জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি, পেগাসাস, করোনা, কৃষি আইনের মতো ইস্যু তুলে কেন্দ্রের বিরোধিতার পরিকল্পনা রয়েছে তৃণমূলের। যার নেতৃত্বে থাকবেন অভিষেক। 
মোদি বিরোধিতায় তৃণমূলের নয়া নীতি– ‘‌অল আউট অ্যাটাক’‌। সূত্রের খবর, এই নীতিকে সামনে রেখে মোদি সরকার যে বিলগুলো আনতে চলেছে, বৈঠকে তা নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করবেন অভিষেক। পাশাপাশি পেট্রল ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি, করোনা মোকাবিলায় সরকারের ব্যর্থতা এবং টিকা বন্টনে একচোখা নীতির ঘোরতর বিরোধিতায় তৃণমূল কংগ্রেস ঝাঁপিয়ে পড়তে চলেছে। তার দিশা নির্দেশ নির্দিষ্ট করবেন অভিষেক।
২৬ শে জুলাই দিল্লি পৌঁছবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। দেখা করবেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী–সহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে। তার আগেই অভিষেকের এই বৈঠক বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।