আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ হিন্দু ধর্মগুরু ‌স্বামী নিত্যানন্দের অনেক ভিডিওই এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। ভক্তদের সামনে সিংহাসনে বসে বিজ্ঞান নিয়ে তাঁর বক্তব্য শুনে এখনও হেসে গড়াগড়ি যান নেটিজেনরা। কিন্তু এই ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে চলছে একাধিক ধর্ষণ এবং শ্লীলতাহানির মামলা। ধর্ষণের অভিযোগে ২০১২ সালে তাঁকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছিল। এবার তাঁর বিরুদ্ধে আরও একটি গুরুতর অভিযোগ উঠল। আশ্রমের গুরুকুল স্কুলে চার শিশুকে জোরজবরদস্তি আটকে রাখার অভিযোগ উঠল স্বামী নিত্যানন্দের বিরুদ্ধে। যিনি অভিযোগ তুলেছেন, তিনিও একসময়ে ধর্মগুরুর আশ্রমে কাজ করতেন, জনার্দন শর্মা। জনার্দন শর্মা সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, ‘‌আমার তিন মেয়ে এবং এক ছেলে নিত্যানন্দের আশ্রমের গুরুকুল স্কুলেই পড়াশোনা করত। আমাকে না জানিয়েই হঠাৎ তাঁদের বেঙ্গালুরু থেকে সরিয়ে আমেদাবাদ নিয়ে চলে যাওয়া হয়। গত চার মাস ধরে আমার ছেলে–মেয়েদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছি। কিন্তু কোনওভাবেই তাদের সঙ্গে দেখা করতে দিচ্ছেন না সেখানকার কর্মচারিরা।’‌
থানায় একটি অভিযোগও দায়ের করেছেন জনার্দন শর্মা। পুলিশ সূত্রে খবর, জনার্দন শর্মার অভিযোগ পাওয়া মাত্র শুরু করা হয়েছে তদন্ত। এই তদন্তের মাঝেই ফেসবুকে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সেই ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, একটি ১৯ বছরের মেয়ে এবং তাঁর দিদি পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে জানাচ্ছেন যে পরিবার জোর করে তাঁদের আশ্রম থেকে নিয়ে যেতে চাইছে।
গত রামানাগারা জেলা আদালতে জামিন–অযোগ্য ধারায় স্বামী নিত্যান্দের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের করা হয়েছিল।    

জনপ্রিয়

Back To Top