‘‌রাজনৈতিক’‌ নয়, পাওয়ারের বাড়িতে আট দলের বৈঠক শেষে জানাল বিরোধীরা

আজকাল ওয়েবডেস্ক: বৈঠক ঘিরে জল্পনা ছিল তুঙ্গে। কিন্তু এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ারের বাড়িতে বিরোধীদের বৈঠক শেষে জানিয়ে দেওয়া হল, এই বৈঠক ‘‌রাজনৈতিক’‌ ছিল না। 
বৈঠকে তৃণমূল কংগ্রেস, আপ, বাম সহ আট দলের প্রতিনিধিদের উপস্থিতি ঘিরে আগে থেকেই জল্পনা ছিল‌, হয়তো তৃতীয় ফ্রন্ট গড়া নিয়েই এই বৈঠক। যদিও বৈঠকের আগেই এই জল্পনা উড়িয়ে দিয়েছিলেন শরদ পাওয়ার। তৃণমূলে সদ্য যোগ দেওয়া বর্ষীয়ান যশবন্ত সিনহাও জানিয়েছিলেন, ‘‌মিশন ২০২৪’‌–এর সঙ্গে মঙ্গলবারের বৈঠকের কোনও সম্পর্ক নেই। এদিন রাষ্ট্রমঞ্চের বৈঠকের পরেও সেই কথাই জানিয়ে দেওয়া হল। তবে এদিনের বৈঠকে কংগ্রেস ছিল না। 
এনসিপির এক গুরুত্বপূর্ণ নেতা মাজিদ মেমন বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের জানিয়ে দেন, ‘‌এই বৈঠক শরদ পাওয়ার ডাকেননি। ডেকেছিলেন যশবন্ত সিনহা। এটি কোনও রাজনৈতিক বৈঠক ছিল না।’ এই বৈঠকের সঙ্গে যে তৃতীয় ফ্রন্ট গড়ার কোনও সম্পর্ক নেই, তাও জানিয়ে দেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘এমনও কথা শোনা যাচ্ছে, কংগ্রেসকে বাদ দিয়ে তৃতীয় ফ্রন্ট গড়তেই নাকি এই বৈঠক। কিন্তু একথা একেবারেই সত্যি নয়। এমন কোনও বৈষম্য নেই। আমরা সমমনস্কদের এই বৈঠকে ডেকেছি। আমরা কংগ্রেস নেতাদেরও ডেকেছিলান। বিবেক তানহা, মণীশ তিওয়ারি, অভিষেক মনু সিংভি, শত্রুঘ্ন সিনহাকেও ডাকা হয়েছিল। কিন্তু তাঁরা আসতে পারেননি। অর্থাৎ কংগ্রেসকে ডাকা হয়নি একথা একেবারেই সত্যি নয়।’ 
বৈঠকে ন্যাশনাল কনফারেন্সের তরফে ওমর আবদুল্লা, আরএলডি’‌র জয়ন্ত চৌধুরী, সমাজবাদী পার্টির ঘনশ্যাম তিওয়ারি, আপের সুশীল গুপ্তা, সিপিআইয়ের বিনয় বিশ্বম, সিপিআই(‌‌এম)‌ এর নীলোৎপল বসু ছিলেন। সিপিআই(‌এম)‌ নেতা আবার বলেছেন, ‘‌এটা কোনও রাজনৈতিক বৈঠক নয়। কেবল সমমনস্ক মানুষদের সম্মেলন মাত্র। করোনার মোকাবিলা, বেকারত্বের মতো বিষয় নিয়ে কথা হয়েছে।’‌ এছাড়াও বৈঠকে ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এপি শাহ, প্রাক্তন অ্যাম্বাসাডর কেসি সিং, গায়ক জাভেদ আখতার। এনসিপি নেতা প্রফুল প্যাটেল বলেছেন, ‘‌যশবন্ত সিনহাই এই বৈঠকের উদ্যোক্তা ছিলেন। তিনি রাষ্ট্রমঞ্চের প্রধান। শরদ পাওয়ারের সঙ্গে দেখা করার প্রস্তাব তিনি দিয়েছিলেন।’‌ শরদ পাওয়ারের ঘনিষ্ঠ সূত্র থেকে দাবি করা হয়েছে, তিনি বা তাঁর দল এই বৈঠক ডাকেননি।