শ্বাসকষ্ট থেকে ঘাড়ের যন্ত্রণা, যোগাসনই মোক্ষম দাওয়াই!

আজকাল ওয়েবডেস্ক: করোনা আবহে বাড়ছে একাধিক শারীরিক সমস্যা। লকডাউনের কারণে ওয়ার্ক ফ্রম হোমের জন্য ঘাড়ের যন্ত্রণায় ভুগছেন পড়ুয়া থেকে কর্মরতরা। আবার ভাইরাসের আক্রমণ শরীরে কমছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা, অধিকাংশেরই দেখা দিচ্ছে শ্বাসকষ্টের সমস্যা। বিশেষজ্ঞদের মতে, নিয়মিত যোগাসনের অভ্যাস থাকলে শরীরের মতো মনেরও শুশ্রূষা হয়। একাধিক রোগের ক্ষেত্রে যোগাসনের হাত ধরেই সুস্থ হওয়া যায়। যেমন, 

 

১. শ্বাসকষ্টের সমস্যা থাকলে সিদ্ধাসন করার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। মেরুদণ্ড সোজা রেখে পা গুটিয়ে পদ্মাসনের মতো বসুন। এরপর আস্তে আস্তে স্বাভাবিকভাবেই শ্বাস নিন। এর ফলে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়। ফুসফুসের কার্যক্ষমতা বেড়ে যাওয়ায় শ্বাসকষ্ট নিয়ন্ত্রণে আসে। 

 

২. হাঁটুর ব্যথায় ভুগলে উত্থানপদাসনে ভরসা রাখতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা। চেয়ারে বসে পা তোলা ও নামানো, বারবার করুন। অথবা চিৎ হয়ে শুয়ে হাঁটু ভাঁজ করে উপরের দিকে তুলে রাখুন। এর বলে থাইয়ের পেশি সঙ্কুচিত বা প্রসারিত হয়। 

 

৩. ঘাড়ের যন্ত্রণা থাকলে আইসোমেট্রিক প্রেসার অভ্যাসের পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। দু’হাত মাথার পিছনে রেখে, হাত দিয়ে ঘাড় সোজা রেখে প্রেসার দিতে হবে। চার দিকে মাথা ঘুরিয়ে চাপ দিতে হয়। 

 

৪. হজমের সমস্যা দূর করতে পবনমুক্তাসন বা সুপ্ত বজ্রাসন হল মোক্ষম দাওয়াই। পবনমুক্তাসনের ক্ষেত্রে চিৎ হয়ে শুয়ে প্রথমে ডান পা ভাঁজ করে পেটের কাছে রাখতে হবে। অন্যদিকে বাঁ পা সোজা থাকবে। এভাবেই উল্টো পায়ে অভ্যাস করতে হবে। হজমের মতোই কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও কমায় এটি। 

 

৫. পেট ও নিতম্বের চর্বি কমাতে নিয়মিত অর্ধকূর্মাসন করুন। শুরুতে মাটিতে বজ্রাসনের ভঙ্গিমায় বসুন। নমস্কারের ভঙ্গিতে দুটি সোজা করে মাথার ওপরে তুলুন। পেট ও বুক যেন ঊরুর সঙ্গে লেগে থাকে। কুড়ি সেকেন্ড এই অবস্থায় থাকুন। আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে বিশ্রাম নিন।