আজকালের প্রতিবেদন: মহিলাদের মধ্যে স্থূলতা বা ওবেসিটি ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু মহিলারাই এ বিষয়ে অবহেলা করে থাকেন। তঁাদের মধ্যে সচেতনতার অভাব রয়েছে। ওবেসিটিতে আক্রান্ত মোট জনসংখ্যার মধ্যে ভারত তৃতীয় স্থানে রয়েছে। ওবেসিটি থাকলে জটিল রোগ হওয়ার ঝুঁকি থাকে। ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য ঠিক মাত্রায় প্রোটিন অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, বিশ্বে প্রায় ৬৫ কোটি বয়স্ক ওবেসিটিতে আক্রান্ত। ওয়ার্ল্ড ওবেসিটি ফেডারেশন (‌ডব্লিউওএফ)–এর তথ্য অনুযায়ী ২০২৫ সাল নাগাদ ৪ কোটি ৮৩ লাখ ভারতীয় ওবেসিটির কবলে পড়বেন। শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রয়োজন যথাযথ ডায়েট। অনিয়মিত জীবনযাপনের ফলে মহিলাদের মধ্যে উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে ওবেসিটি। কিন্তু জনস্বাস্থ্যে ওবেসিটি‌কে গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয় না। নন–‌কমিউনিকেব্‌ল ডিজিজের তালিকার মধ্যে ওবেসিটিকেও গুরুত্ব দিয়ে রাখা দরকার। 
যেভাবে মহিলাদের মধ্যে ওবেসিটি বাড়ছে, তা সত্যিই ভয়ঙ্কর। ওবেসিটি থেকে শরীরে নানা রকম জটিলতার সৃষ্টি হয়। গর্ভাবস্থায় হার্টের অসুখ দেখা যায়। বিভিন্ন কারণে মহিলাদের ওবেসিটি গ্রাস করছে। সিএমআরআই হাসপাতালের চিফ ডায়েটিশিয়ান এবং ইন্ডিয়ান ডায়েটিক অ্যাসোসিয়েশনের জেনারেল সেক্রেটারি ঈপ্সিতা চক্রবর্তী জানান, কীভাবে ওবেসিটিকে প্রতিরোধ করা যায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাবার খেলে এবং শরীরচর্চা করলে অনেকটাই ওবেসিটির গ্রাস থেকে দূরে থাকা সম্ভব। এক্সারসাইজের মধ্যে পদ্ধতিগত কিছু পরিবর্তন করলে তার কার্যকারিতা ভাল পাওয়া যায়। এ ছাড়া যথার্থ পুষ্টি পর্যাপ্ত পরিমাণে শরীরে গেলে ওজন বৃদ্ধি এবং তার থেকে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে বঁাচা সম্ভব। ওজন নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে প্রোটিনের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। পরিকল্পনা করে এমন প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে, যা সহজে হজম হবে। ৯টি অপরিহার্য অ্যামাইনো অ্যাসিড শরীরের পক্ষে জরুরি। যাকে মডেল পিডিসিএএএস স্কোর বলে অর্থাৎ (‌প্রোটিন ডায়জেস্টিবিলিটি–কারেকটেড অ্যামাইনো অ্যাসিড স্কোর)‌। হজম–‌ক্ষমতার জন্য শরীরে অ্যামাইনো অ্যাসিডের প্রয়োজন রয়েছে। চর্বিযুক্ত, কোলেস্টেরল ও শর্করাসমৃদ্ধ খাবার কম খাওয়া দরকার। স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেলে তার সুফল অনেক। ফল, সবজি খেতে হবে। চর্বি–‌জাতীয় খাবার, চিনি, লবণ মাত্রাতিরিক্ত খাওয়া যাবে না। প্রাণিজ প্রোটিনের থেকে উদ্ভিজ প্রোটিনের গুণ বেশি। কারণ হার্টের রোগ এবং অন্যান্য জটিলতার ঝুঁকি কম থাকে। ওবেসিটি থেকে রক্ষা পেতে ঠিকঠাক ডায়েট অপরিহার্য।

জনপ্রিয়

Back To Top