আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পিছু হটল হোয়াটসঅ্যাপ। তাদের নয়া প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে প্রবল বিতর্কের মধ্যেই জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপের তরফে জানিয়ে দেওয়া হল, প্রাইভেসি আপডেটের বিষয়টি আপাতত স্থগিত রাখা হচ্ছে। ইউজারদের মধ্যে যাতে কোনও ভুল বোঝাবুঝি না থাকে, সেজন্য তারা তাঁদের আরও বেশি সময় দিতে চায়। হোয়াটসঅ্যাপের দাবি, ছড়িয়ে পড়া নানা গুজবের ফলে ইউজাররা উদ্বিগ্ন হচ্ছেন তথ্যসুরক্ষার বিষয়টি নিয়ে। সেই কারণেই এই সিদ্ধান্ত নিল তারা।
৮ ফেব্রুয়ারি ছিল ডেটা শেয়ারিং সংক্রান্ত আপডেট গ্রহণের শেষ সময়সীমা। ফেসবুক অধিকৃত এই সংস্থা জানিয়েছে, জনমানসে প্রাইভেসি এবং সিকিউরিটি সংক্রান্ত ভুল ধারণা ভাঙানোর জন্য বিষয়টি স্থগিত রাখা হল। ওই পোস্টে ফেসবুক অধিকৃত এই জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপের তরফে জানানো হয়েছে, ‘সাম্প্রতিক আপডেট নিয়ে প্রচুর মানুষের বিভ্রান্তির কথা আমরা শুনেছি। এই আপডেট ফেসবুকের সঙ্গে তথ্য শেয়ার করার ক্ষমতা আমাদের দিচ্ছে না।’‌ ১৫ মে নতুন অপশন আসার আগে এই পলিসি নিয়ে ধীরে ধীরে ব্যবহারকারীদের কাছে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছেন হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ। এই আপডেটের যে বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে তা হল– ব্যবহারকারীর চ্যাট সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য ফেসবুকের সঙ্গে শেয়ার করতে পারে হোয়াটসঅ্যাপ। মূলত বিভিন্ন বিজ্ঞাপনের জন্যই নাকি এটি করা হবে। কিন্তু এই অভিযোগ সম্পূর্ণরূপে খারিজ করেছে সংস্থা। ব্যবহারকারীদের উদ্দেশে তারা ব্লগে লিখেছে, ‘না আমরা আপনাদের ব্যক্তিগত মেসেজ দেখতে পারি, না আপনাদের ফোনকল শুনতে পাই। আপনার শেয়ার করা লোকেশনও আমরা দেখতে পাই না। ফেসবুকও পায় না।’‌ লোকেশন সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য এন্ড টু এন্ড এনক্রিপটেড থাকে বলেও দাবি করেছে হোয়াটসঅ্যাপ।
এই আপডেট সম্পর্কে হোয়াটসঅ্যাপ বলেছে, এটা একটি ব্যবসায়িক পরিষেবা। এক্ষেত্রে ফেসবুক থেকে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ম্যানেজ করতে, তথ্য চালাচালিতে সুবিধা হবে। ব্যবসায়িক ব্যবহার আরও সহজ করতেই ওই আপডেট বলে সাফাই গেয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top