আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ সুরার প্রতি আসক্তি মানুষের আদিকাল থেকেই। এই সুরা পান ইতিহাসের পাতায় সীমাবদ্ধ নয়। বর্তমানে এর ব্যবহার হয়ে বেড়েছে ব্যবহারিক জীবনেও। দেখা যায় পার্টি থেকে আড্ডা জোন, ফুর্তি হোক বা মন খারাপ, এমনকি সামাজিক অনুষ্ঠানে সব বয়সী মানুষরা মদ্যপান করেন। এই নিয়ে দুশ্চিন্তার অন্ত ছিল না সবার। কারণ অতিরিক্ত মদের নেশায় নানা রোগে পড়ে মদ্যপায়ীরা। বিশেষ করে লিভারের রোগ। এই দুশ্চিন্তা দিন শেষ হতে চলেছে বলে দাবি একদল গবেষকদের। গবেষকরা জানাচ্ছেন, আগামী ১০ বছরের মধ্যে মানুষ মদ্যপান করা বন্ধ করে দেবেন। 
গবেষকরা নিজেদের জার্নালে দাবি করেছেন, বাজারে প্রাকৃতিক মদের পরিবর্তে আসতে চলেছে কৃত্রিম মদ বা সিনথেটিক অ্যালকোহল। এই মদ বাজারে পুরোপুরি চলে এলে প্রাকৃতিক সুরা পান ছেড়ে দেবে বলে দাবি বিজ্ঞানীদের। এই কৃত্রিম মদ নিয়ে লন্ডনের ইমপেরিয়াল কলেজের গবেষক ডেভিড নটের দাবি, ‘‌যে কোন টেনশন থেকে মুক্তির উপায় খুঁজতে মানুষ মদ্যপান করে। এই প্রাকৃতিক মদ মানুষকে ঘোরের মধ্যে নিয়ে যায়। কৃত্রিম সুরায় তা থেকে বঞ্চিত হবেন না কেউ। কিন্তু পরের দিন হ্যাংওভার থাকবে না। ভুগতে হবে না লিভারের সমস্যাতেও।’‌ 
কৃত্রিম মদ বা সিনথেটিক অ্যালকোহল আসলে কী? গবেষকদের ভাষায় সিনথেটিক মদকে বলা হয় অ্যালকোসিনথ। সিনথেটিক মদ খেলে মাথা যন্ত্রণা, বমি বমি ভাব, হ্যাংওভারের মতো কোন উপসর্গ থাকবে না। কিন্তু নেশা কমও হবে না। গবেষক ডেভিড নট আরও দাবি করেন, ‘‌আগামী ১০ বছরের মধ্যে মানুষ চলতি মদ খাওয়া বন্ধ করে দেবে।’‌
 

জনপ্রিয়

Back To Top