আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু প্রথম থেকেই মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছে। জানিয়েছে, একমাত্র মাস্ক ব্যবহার করলেই করোনা সংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব। এবার কয়েক জন বিজ্ঞানী দাবি করেছেন, করোনা বাতাসের মাধ্যমেও ছড়ায়। এর পর মাস্ক ব্যবহার যে আরও জরুরি, তা বলে দিতে হয় না। 
মাস্ক ব্যবহার সকলেই করছেন। সবার পক্ষে এন–৯৫ মাস্ক ব্যবহার করা সম্ভব নয়। অনেকেই ঘরে তৈরি মাস্ক পরেন। কিন্তু ঠিক কোন আকৃতির বা কী ধরনের মাস্ক ব্যবহার করলে করোনা রোখা সম্ভব?‌ সেই নিয়ে গবেষণা চালিয়েছে ফ্লোরিডা আটলান্টিক বিশ্ববিদ্যালয়। একটি ম্যানিকুইনকে বিভিন্ন রকম মাস্ক পরিয়ে পরীক্ষা চালিয়েছে। যন্ত্রের মাধ্যমে পুতুলটিকে কাশানো হয়েছে। তার পর লেজার রশ্মি ব্যবহার করে দেখা হয়েছে, তার মুখ থেকে নিঃসৃত কণা কোন মাস্কের মধ্যে দিয়ে কতদূর যায়। 
* দেখা গেছে মুখে রুমাল বাধা থাকলে তাতে কাশি নিঃসৃত কণা খুব একটা আটকায় না। অনেক দূর পর্যন্ত ছিটকে যায়। 
* বাড়িতে বানানো মাস্কে যদি কাপড়ের অনেক স্তর থাকে, তাহলে তা সক্রিয়ভাবে ভাইরাস আটকায়। তবে এই ধরনের মাস্কে সেলাইয়ের জায়গায় অনেক সময়ই ছিদ্র থেকে যায়। 
* একটু উঁচু হয়ে থাকা চোঙের মতো দেখতে মাস্কও জীবাণু আটকাতে কার্যকরী। 
* তবে মাস্ক না পরলে মুখ থেকে নিঃসৃত কণা ৬ ফিট পর্যন্ত দূরত্বে ছিটকে পড়তে পারে। 
* ব্যান্ডেনা জাতীয় সুতির মাস্কে মুখ নিঃসৃত কণা ৩ ফিট ৭ ইঞ্চি পর্যন্ত দূরত্বে ছিটকে যেতে পারে। 
* রুমাল বাঁধলে মুখ নিঃসৃত কণা ১ ফিট ৩ ইঞ্চি পর্যন্ত ছিটকে যেতে পারে। 
* সেলাই করা সুতির মাস্কে আড়াই ইঞ্চি পর্যন্ত ছিটকে যেতে পারে কাশিতে থাকা জীবাণুর কণা। 
* চোঙের মতো দেখতে মাস্কে আট ইঞ্চি পর্যন্ত দূরে গিয়ে পড়তে পারে কাশি নিঃসৃত জীবাণু।
 

জনপ্রিয়

Back To Top