Food: ভাত–রুটির বদলে ২০৫০ সালে আপনার পাতে কী কী খাবার পড়বে?‌

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ জলবায়ু পরিবর্তন, উষ্ণায়ন ও রাজনৈতিক কারণে ভবিষ্যৎ পৃথিবীতে নানা পরিবর্তন আসতে পারে।

বদলে যেতে পারে আমাদের খাদ্যাভাস, তৈরি হতে পারে চরম খাদ্য সঙ্কট। এমন পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিজ্ঞানীরা গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা একটি তালিকা তৈরি করেছেন। তাদের ধারণা, অপ্রচলিত খাবারই ২০৫০ সালে সারা বিশ্বের মানুষের খাদ্য তালিকায় চলে আসবে। 
তাঁরা বলেছেন, ভবিষ্যতে আমাদের নকল কলা (এনসেট) এবং পান্ডানুস গাছের ফল (কেয়া ফল) দিয়ে সকালের জলখাবার সারতে হতে পারে। বিজ্ঞানীরা জানান, ইউক্রেন যুদ্ধ আমাদের খাদ্য নিয়ে নতুন করে ভাবতে শিখিয়েছে। কারণ গস সহ কয়েকটি ফসলের ওপর নির্ভরশীলতা বিশ্বকে বিপদে ফেলেছে।
জলবায়ু পরিবর্তন মারাত্মক ঝুঁকি বাড়াচ্ছে। এর প্রভাবে ফসল নষ্ট হয় এবং বিশ্বজুড়ে পণ্যের দাম দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।
লন্ডনের রয়্যাল বোটানিক গার্ডেনস ইন কিউ জানিয়েছে, ১৫টি খাদ্য পণ্য থেকে ৯০ শতাংশ ক্যালোরি আসে। আমাদের ভবিষ্যৎ খাদ্যভাসের জন্য নতুন উপাদান খুঁজে বের করা খুব জরুরি। কিউ গবেষক ড.‌ শ্যাম পিরিনন বলেন, আমরা যে খাবার খাই তাতে বৈচিত্র্য আনলে ক্ষুধা দূর হবে। জীব বৈচিত্র্যের ক্ষতির মোকাবিলা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়া যাবে।
তিনি আরও যোগ করেন, আমরা জানি বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার ভোজ্য উদ্ভিদ প্রজাতি রয়েছে, যা বিভিন্ন জনগোষ্ঠীরা খেয়ে থাকে। ভবিষ্যতে খাদ্য সঙ্কট মোকাবিলায় এসব উদ্ভিদ থেকে আমরা সমাধান খুঁজে বের করতে পারি। সারা পৃথিবীতে ৭ হাজারেরও বেশি ভোজ্য উদ্ভিদ রয়েছে। এর মধ্যে ৪১৭টি ব্যাপকভাবে ফলন দেয় এবং খাদ্য হিসেবে ব্যহৃত হয়।
পান্ডানুস (কেয়া গাছ), প্যান্ডানুস (পান্ডানুস টেক্টোরিয়াস) একটি ছোট প্রজাতির গাছ। যা প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জ থেকে ফিলিপাইন এবং উপকূলীয় এলাকায় জন্মে।
পান্ডানুসের পাতা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অধিকাংশ অঞ্চলে মিষ্টি এবং সুস্বাদু খাবারে ব্যবহার করা হয়। এর ফল দেখতে অনেকটা আনারসের মতো, যা কাঁচা বা রান্না করে খাওয়া যায়। পান্ডানুস গাছ খরা, প্রবল বাতাস এবং নুন সহ যে কোনও চ্যালেঞ্জিং পরিবেশ সহ্য করার ক্ষমতা রাখে, জানান গবেষক ড. মেরিবেল সোটো গোমেজ।
তিনি বলেন, এটি সব রকম জলবায়ু সহ্য করতে পারে এবং পুষ্টিকর। সঙ্গে সুস্বাদুও। এটি আমাদের খাদ্য তালিকায় বৈচিত্র্য আনতে পারে। পান্ডানুস সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িত, পুষ্টিকর এবং সারা বিশ্বে চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতিতে উৎপাদন করাও সম্ভব। মটরশুঁটি, শিম মটরশুঁটি বা শিমও আমাদের ভবিষ্যতের খাদ্য পণ্য। এটি সস্তা, উচ্চমাত্রার প্রোটিন এবং ভিটামিন-বি সমৃদ্ধ খাবার। সমুদ্রের তীর থেকে পাহাড়ের ঢালেও  এই খাবার উৎপাদন করা যায়। বিশ্বে ২০ হাজার প্রজাতির শিম  রয়েছে। কিন্তু আমরা মাত্র কয়েকটা ব্যবহার করি। শত শত বন্য শিম রয়েছে এখনও বিজ্ঞানীদের কাছে তা অজানা।
মোরামা বিন (টাইলোসেমা এস্কুলেন্টাম) বৎসোয়ানা, নামিবিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকার কিছু অংশে একটি প্রধান খাদ্য। যেখানে মটরশুঁটি ভুট্টা বা মাটির সঙ্গে পাউডারে সিদ্ধ করা হয়, যাতে পোরিজ বা কোকোর মতো পানীয় তৈরি করা হয়। সব গুলোই ভোজ্য নয়, তবে বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন প্রজাতির বৈশিষ্ট্য গবেষণা করছেন, যার কয়েকটি খাদ্য এবং পুষ্টি সরবরাহ করতে পারে।
সিরিয়াল, যা শস্য জাতীয় পণ্য থেকে আসে, এছাড়াও ১০ হাজারেরও বেশি প্রজাতি রয়েছে। এই খাদ্যের ব্যাপক বৈচিত্র্য। ভবিষ্যৎ খাদ্য সংকট দূর করতে পারে এটি।
ফোনিও নামক প্রাচীন আফ্রিকান শস্যদানা বাদামের মতো স্বাদের জন্য জনপ্রিয়। বিশেষত মালির বামবারা জনগোষ্ঠীর খুব প্রিয় খাবার এটি। পাঁচ হাজার বছর আগে এটি মিশরে চাষ করা হত। মরুতে জন্মায় এই উদ্ভিদ, সাদা ও কালো দুই ধরনের ফোনিও পাওয়া যায়। স্বাদে কিছুটা এশিয়ার শস্যদানা কাউনের মতো। এতে প্রচুর আয়রন, জিঙ্ক ও ম্যাগনেশিয়াম আছে।
 জলবায়ু পরিবর্তনের মুখে একটি নতুন সুপারফুড এবং জীবন রক্ষাকারী হতে পারে। সমীক্ষা অনুসারে, কলার মতো ফসলের ১০০ মিলিয়নেরও বেশি মানুষকে খাওয়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে। উদ্ভিদটি ইথিওপিয়ার বাইরে প্রায় অজানা, যেখানে এটি পোরিজ এবং রুটি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। গবেষণায় দেখা গেছে, আফ্রিকাতে অনেক বড় পরিসরে ফসলটি জন্মানো যেতে পারে।
সূত্র: বিবিসি

আকর্ষণীয় খবর