আজকাল ওয়েবডেস্ক :‌ ব্রেকফাস্টের আগে ব্যায়াম বা জগিং, নাকি পরে? এই নিয়ে বিতর্ক বহুদিনের। এক দল বলেন, অবশ্যই ওয়ার্ক আউটের আগে খেয়ে নিতে হবে। তাতে ব্লাড সুগার একটু বাড়বে, যেটা বেশ অনেকক্ষণ ধরে হেভি ওয়ার্ক আউটের শক্তি জোগাবে। না হলে খুব তাড়াতাড়ি ক্লান্ত হয়ে পড়ার সম্ভাবনা। আর যাঁদের মত, প্রাতরাশ খাওয়া উচিত ব্যায়াম বা জগিং–এর পরে, তাঁরা যুক্তি দেন, এতে ফ্যাট অনেক বেশি পোড়ে।
সম্প্রতি ব্রিটেনের একটি বিশ্ববিদ্যালয় তিরিশ জন স্থূলকায় মানুষের উপরে পরীক্ষা চালিয়ে দেখেছে, যাঁরা খাওয়ার আগে ব্যায়াম করেছেন, তাঁদের ফ্যাট দ্বিগুণ পুড়েছে।
এর কারণ, না খেয়ে ব্যায়াম করলে প্রথমে শরীরে সঞ্চিত কার্ব আর তার পরে ফ্যাট–এ টান পড়ে। এমন নয় যে, যাঁদের ফ্যাট বেশি পুড়ল, তাঁদের ওজন এই সমীক্ষার ছয় সপ্তাহ সময়কালের মধ্যে অনেকটা কমে গেল। কিন্তু তা না হলেও শরীরের অনেক উপকার হয়। মূল যে ব্যাপারটা বাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা লক্ষ করেছেন সেটা হল, খাওয়ার আগে প্রভূত পরিমান ঘাম ঝরালে দেহের পেশী অনেক বেশি ইনসুলিন–রেস্পন্সিভ হয়, যা ব্লাড সুগারকে নিয়ন্ত্রণে এনে ডায়াবেটিস আর হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায়। বছর দুয়েক আগে এই একই ইউনিভার্সিটি জনা দশেকের উপরে একই পরীক্ষা চালিয়ে একই ফলাফল পেয়েছিল।
তবে একটা বিষয়ে সতর্ক করছেন খাদ্য বিজ্ঞানীরা। খাবার কিছু না খেলেও ব্যায়াম করার আগে খেতে হবে পর্যাপ্ত জল। আর ওয়ার্ক আউটের পনেরো মিনিট থেকে আধ ঘন্টার মধ্যে ৪:১ অনুপাতে কার্বোহাইড্রেট আর প্রোটিন। তাহলে আর দেরি কেন? এই সপ্তাহান্তেই শুরু করে দিন নিয়ম মেনে শরীরচর্চা।

জনপ্রিয়

Back To Top