আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বাড়ির ছোট্ট শিশুর ঘর কীরকম দেখতে হবে, তা নিয়ে বেশ চিন্তিত থাকেন বাবা–মায়েরা। পাশাপাশি উৎসাহ–ও থাকে তুঙ্গে। দেখুন কয়েকটি টিপস্‌্.‌.‌.‌

❏‌ আয়না থাকুক দেয়ালে
খোলামেলা আর আলোয় ভরা একটা ঘর কে না চায়! শিশুর ছোট্ট ঘরটিকে দেখতে আরও অনেক বড় করে তুলতে পারেন আপনি দেয়ালে আয়না ঝুলিয়ে। আয়নায় পাশের দেয়ালের প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠলে ঘরটিকে তুলনামূলকভাবে বেশি বড় দেখাবে!
❏‌ মেঝেটা রাঙিয়ে দিন
মেঝেতে কার্পেট ব্যবহার করতে চান? রঙিন এবং একরঙা কার্পেট বিছিয়ে দিন মেঝেতে। শিশুরা উজ্জ্বল রঙ পছন্দ করে। তার পছন্দের রঙটিই বেছে নিন।
❏‌ পর্দাটা আরেকটু উপরে
আপনার সন্তানের ঘরের জানালা ঠিক কতটা বড়? পর্দাটা জানালার একটু উপরে ঝুলিয়ে নিন। অর্থাৎ, অনেকেই জানলা যেখান থেকে শুরু হয়েছে সেখান থেকেই পর্দা ঝোলালেও আপনি পর্দা ঝোলানোর রডটিকে ছাদের আরও কাছাকাছি বসান। এতে করে জানালা দেখতে বড় মনে হবে। ফলে ঘরটাকে দেখতে আরও বড় লাগবে!
❏‌ রঙ দিয়ে ইলিউশন
দেয়ালে, ছাদে বা আসবাবপত্রে রঙ দিয়ে পাখী, ফুল, একটা গাছ কিংবা আপনার সন্তানের পছন্দের চরিত্রটিকে এঁকে দিতে পারেন। নির্দিষ্ট কোন থিম ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে ঘরটি অনেক বেশি প্রাণবন্ত দেখাবে।
❏‌ হালকা রঙে বিশাল ঘর
ঘরের রঙ যদি একটু গাঢ় ঘরানার হয়, সেক্ষেত্রে যেকোন ঘরকে দেখতে অনেক ছোট মনে হয়। শিশুর ঘরের দেয়ালে নানারকম প্যাটার্ন বা চরিত্র আঁকুন। তবে দেয়ালের মূল রঙ হিসেবে বেছে নিন হালকা কোন রঙ!
❏‌ একটা ছড়া, কিংবা গান
ছোট্ট শিশু ছন্দে ছন্দে ছড়া পড়বে, গান গাইবে, অ আ ক খ পড়া শিখবে- কেমন লাগছে ভাবতে? এখন আপনি ঘরের দেয়ালে চার লাইনের ছড়া বা অক্ষর লিখে দিতে পারেন। সাথে একটা ঘুড়ি, কিংবা একটা  বেলুন। আপনার শিশুকে তাহলে আর বই পরানোর জন্য ধকল পোহাতে হবে না। সে নিজ থেকেই পড়বে, গাইবে, শিখবে!
 

জনপ্রিয়

Back To Top